শনিবার   ০২ মার্চ ২০২৪ || ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০

প্রকাশিত: ১৭:১৪, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

নেতৃত্ব গঠনে রাসূলুল্লাহ (সা.) এর মূলনীতি

নেতৃত্ব গঠনে রাসূলুল্লাহ (সা.) এর মূলনীতি
সংগৃহীত

কোনো মানবিক আদর্শ না থাকলে কেউ কোনো দিন নেতৃত্বের অধিকারী ব্যক্তি হতে পারেন না। আর তাই বিশ্বনবী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সব সময় মানুষের নেতৃত্ব গঠনে জোর দিয়েছেন। এবং তিনি নিজে বেশ কিছু নীতি অবলম্বন করতেন।

এবার রাসূলুল্লাহ (সা.) এর সে নীতিগুলো একে একে বর্ণনা করা যাক।

নেতা নির্বাচন: নেতা নির্বাচনে মহানবী (সা.) কেবল যোগ্য ও বিশেষজ্ঞকে মনোনীত করতেন। এ ক্ষেত্রে স্বজনপ্রীতি ও পক্ষপাতদুষ্ট অবস্থানকে তিনি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। ক্ষমতা বা পদের জন্য লালায়িত ব্যক্তিকে নেতা নির্বাচন করতেন না। তিনি বলেন, ‘আমি এই দায়িত্বপূর্ণ কাজে এমন কোনো ব্যক্তিকে নিয়োগ করব না, যে তা পাওয়ার জন্য প্রার্থী হবে; অথবা এমন কাউকেও নয়, যে তা পাওয়ার জন্য লালায়িত হবে’। (মুসলিম, হাদিস: ১,৮২৪)

কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘তুমি যদি চেয়ে নিয়ে তা লাভ করো, তাহলে তোমাকে ওই দায়িত্বের হাতে ছেড়ে দেওয়া হবে। আর না চাইতেই যদি তা পাও তাহলে তুমি সে জন্য সাহায্যপ্রাপ্ত হবে’। (বুখারি, হাদিস: ৭,১৪৭; মুসলিম, হাদিস: ১,৬৫২)

জবাবদিহিতা: নবীজির (সা.) নেতৃত্ব পরিচালনার মূলনীতি ছিল কর্তৃত্ব, ক্ষমতা ও অর্থ-সম্পদ আল্লাহ ও মুসলিমদের আমানত। আল্লাহভীরু ও ন্যায়পরায়ণ লোকদের হাতে তা ন্যস্ত থাকবে। কেউ ইচ্ছামত তা নষ্ট করার অধিকার রাখবে না। এ আমানত যাদের হাতে সোপর্দ করা হবে তারা এর দায়িত্ব পালন সম্পর্কে জবাবদিহি করতে বাধ্য। আল্লাহ বলেছেন, ‘আমানত বহনের যোগ্য ব্যক্তিদের হাতে আমানত সোপর্দ করার জন্য আল্লাহ তোমাদের নির্দেশ দিয়েছেন’। (সূরা: নিসা, আয়াত: ৫৮)

পরামর্শ সভা গঠন: কোরআনে নবীজি (সা.)–কে পরামর্শের ভিত্তিতে কার্যনির্বাহ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি তাই মজলিসে শূরা বা পরামর্শ সভা গঠন করেন। আনসার ও মুহাজিরদের মধ্যে বিজ্ঞ সাহাবিরা ছিলেন সভার সদস্য। সদস্যদের সঙ্গে তিনি পরামর্শ করতেন, তাদের পরামর্শ গ্রহণ করেছেন। যদিও কোরআন তাকে ক্ষমতা দিয়েছে সে-সব পরামর্শ গ্রহণ না করার বা বর্জন করার। নবীজির (সা.)পরামর্শ গ্রহণের নীতি থেকে বোঝা যায়, নেতা পরামর্শ চাইবেন সংশ্লিষ্ট লোকেরাও পরামর্শ দেবে; কিন্তু তার নিকট যে পরামর্শ বেশি সঠিক ও কল্যাণকর মনে হবে তা তিনি গ্রহণ করবেন।

নবীজি (সা.) বলেছেন, নেতা হবেন জনগণের সেবক (মিশকাত আল মাসাবিহ, হাদিস: ৩,৯২৫)। তিনি তার অনুসারীদের এভাবেই তৈরি করেছিলেন। ফলে প্রসাশনের বিভিন্ন স্তরে নিয়োজিত ব্যক্তিরা নিজেদের জনগণের সেবকের ভূমিকায় উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

কায়েমি নেতৃত্ব পরিবর্তনের কর্মপন্থা: কোনো নবী প্রচলিত নেতা বা শাসকের কাছে নেতৃত্বের দাবি করেননি। মহানবী মুহাম্মাদ (সা.)-ও মক্কা ও অন্যান্য স্থানের নেতা ও শাসকদের কাছে ইসলামের দাওয়াত পেশ করেছেন, তাদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করেছেন; কিন্তু তাদের কখনো সরাসরি কর্তৃত্ব পরিত্যাগ করতে বলেননি। সমাজপতিরা আগেকার মতো মহানবী (সা.) এর বিরোধিতা করেছেন। তাদের কাছে দাওয়াত পৌঁছানোর মধ্য দিয়ে সমাজের অন্যরা ইসলামের আওয়াজ শুনতে পেয়েছে। প্রতিষ্ঠিত নেতৃত্ব ইসলাম কবুল করতে রাজি না হওয়ায় লাভ হয়েছে যে, তাদের অধীনস্তদের অনেকে ইসলাম গ্রহণ করায় তাদের থেকে নতুন নেতৃত্ব জেগে উঠেছে।

সূত্র: ডেইলি-বাংলাদেশ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়