সোমবার   ২২ এপ্রিল ২০২৪ || ৮ বৈশাখ ১৪৩১

প্রকাশিত: ০৪:৫০, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

পলাশবাড়ীতে স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে ৬ ফুট দৈর্ঘ্যরে প্রচীন মসজিদ

পলাশবাড়ীতে স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে ৬ ফুট দৈর্ঘ্যরে প্রচীন মসজিদ

প্রাচীন স্থাপত্য নকশা ও আরবী হরফ মুদ্রিত ছয় ফুট দৈর্ঘের মসজিদকে ঘিরে মানুষের আগ্রহের কোন শেষ নেই। কে কখন এটি নির্মাণ করেছেন তার সঠিক কোন তথ্য নেই। তবে এলাকায় জনশ্রুতি আছে সাতশত বছর আগে এক রাতে অলৌকিক ভাবে সৃষ্টি হয়েছে মসজিদটি।

যে মসজিদটির কথা বলছিলাম সেটি কালের স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে পলাশবাড়ি পৌরশহরের নুনিয়াগাড়ি গ্রামে। এর পূর্বে রংপুর-ঢাকা মহাসড়ক ও পশ্চিম পাশ দিয়ে গেছে পলাশবাড়ী-ঘোড়াঘাট সড়ক। দুই সড়কের ঠিক মাঝ দুরত্বে নুনিয়াগাড়ী গ্রামের বুকচিড়ে নির্মিত পিচঢালা সড়কের দক্ষিনে অবস্থিত ঐতিহাসিক এ মসজিদটি।

পলাশবাড়ি জিরো পয়েন্ট চৌমাথা মোড় থেকে মসজিদটির দুরত্ব আধাকিলোমিটার। এটি দেশের সবচেয়ে ছোট এক গম্বুজ বিশিষ্ট একটি মসজিদ যা প্রাচীন ইসলামিক ঐতিহ্যের এক অন্যন্য নিদর্শন। যা কালের সাক্ষী হয়ে আজ পর্যন্ত দাঁড়িয়ে আছে।

এটি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের তালিকাভুক্ত একটি প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা। অন্তত: আড়াইশ বছরের পুরনো এ মসজিদটি এক কক্ষ বিশিষ্ট। এর উপরিভাগে একটি গম্বুজ এবং চার কোনায় রয়েছে চারটি পিলার। প্রাচীন এ মসজিদটিতে এক সাথে নামাজ আদায় করতে পারেন ইমামসহ তিন থেকে চারজন। মসজিদটির অভ্যন্তরে নামাজের জায়গা রয়েছে দৈর্ঘ-প্রস্ত মাত্র ছয় ফুট। স্থানীয় কেরামত উল্লাহ মন্ডলের ছেলে কাদিরবক্স মন্ডলের নামে মসজিদটি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের তালিকাভূক্তি হয়েছে। কিন্তু মসজিদটির নাম নিয়ে জনমনে রয়েছে নানা প্রশ্ন। এই নাম নিয়ে নানা বির্তক সৃষ্টি হয়েছে ওই সমাজ জুড়েই।

এলাকাবাসীসহ তাঁর বংশধররা বলছেন, তিনি এটি নির্মাণ করেননি। নুনিয়াগাড়ি গ্রামের প্রবীণ বাসিন্দা ও মসজিদ কমিটির সভাপতি রেজানুর রহমান ডিপটি বলেন, ধারণা করা হয় সম্রাট সুজাউদ দৌলার আমলের। বিভিন্ন সময় স্থানীয় ও সরকারি ভাবে মসজিদটির ইতিহাস উদঘাটনের চেষ্টা চালানো হয়েছে। ১৯৯১ সালে পলাশবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে দায়িত্বে আসেন আব্দুল মালেক।

তৎকালিন গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক ছিলেন আব্দুর সবুর। তারা মসজিদটি সরেজমিনে পরিদর্শন করেন এবং এটির ইতিহাস উদঘাটনের জন্য স্থানীয়দের নিয়ে একটি কমিটি গঠন করেন। সেই কমিটির সদস্যরা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামারদহ ইউনিয়নের মাস্তা এলাকার প্রাচীন লাল মসজিদ ও দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার ওসমানপুর এলাকার প্রাচীন সৌর মসজিদ দেখে ধারণা করা হয় এটি সম্রাট সুজাউদ দৌলার আমলে স্থাপনা। কারণ সম্রাট সুজাউদ দৌলার আমলে নির্মিত ওই দুটোর হুবহু আদাল-অনুকরণে তৈরী করা হয়েছে পলাশবাড়ির প্রাচীন এই একগম্বুজ বিশিষ্ট সবচেয়ে ছোট মসজিদটি।

তবে এর নাম নিয়ে ভিন্নমত প্রদান করেন তিনি। মন্ডল পরিবারের সদস্য আব্দুল মতিন মন্ডল জানান, মসজিদটি সংরক্ষণের জন্য জেলা-উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে সরকারের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগসহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করা হয়।

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর ২০১৩ সালের ২ জুন মসজিদটিকে সংরক্ষিত প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ হিসেবে ঘোষণা করে সংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রনালয়। ফলে মসজিদটি রংপুর বিভাগের মধ্যে প্রাচীন স্থাপত্যের তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। তিনি আরো জানান, মসজিদটির স্মৃতি রক্ষায় এর পূর্ব পাশে নতুন বড় একটি মসজিদ নির্মিত হয়েছে।

যেখানে এলাকাবাসীসহ দূর-দূরান্ত থেকে প্রাচীন মসজিদটি দেখতে আসা ধর্মপ্রাণ মানুষ নামাজ আদায় করে থাকেন। তিনি নবনির্মিত মসজিদ কমিটির সেক্রেটারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রাচীন ইসলামিক ঐতিহ্যের এক অন্যন্য নিদর্শন প্রাচীন এ মসজদটি রক্ষায় সংস্কারের দাবী জানিয়েছেন তিনি।

দৈনিক গাইবান্ধা

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

শিরোনাম

ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ভাতা বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপনদেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীরঈদে বেড়েছে রেমিট্যান্স, ফের ২০ বিলিয়ন ডলারের ওপরে রিজার্ভ১৪ কিলোমিটার আলপনা বিশ্বরেকর্ডের আশায়তাপপ্রবাহ বাড়বে, পহেলা বৈশাখে তাপমাত্রা উঠতে পারে ৪০ ডিগ্রিতেনেইমারের বাবার দেনা পরিশোধ করলেন আলভেজ‘ডিজিটাল ডিটক্স’ কী? কীভাবে করবেন?বান্দরবানে পর্যটক ভ্রমণে দেয়া নির্দেশনা চারটি স্থগিতআয়ারল্যান্ডের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দনজুমার দিনে যেসব কাজ ভুলেও করতে নেইগোবিন্দগঞ্জে কাজী রাশিদা শিশু পার্কের উদ্বোধনইউরোপের চার দেশে বাংলাদেশি শ্রমিক নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু