• শুক্রবার   ২৭ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৩ ১৪২৯

  • || ০৪ রজব ১৪৪৪

পানচাষে স্বাবলম্বী ছয়ঘরিয়ার চাষিরা

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২৬ ডিসেম্বর ২০২২  

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কঞ্চিবাড়ি ইউনিয়নের একটি জনবহুল গ্রাম ছয়ঘরিয়া। গ্রামটির গোড়াপত্তনের সময় মাত্র ছয়টি পরিবার বসবাস করতো। তখন থেকেই গ্রামটির নাম হয় ‘ছয়ঘরিয়া’। বর্তমানে এ গ্রামে এক হাজার পরিবারের বসবাস। এরমধ্যে প্রায় সাড়ে তিনশ পরিবারই পানচাষ করে।প্রায় অর্ধশতাধিক বছর ধরে পানচাষ করে আসছেন তারা। পানচাষই এ গ্রামের পরিবারগুলোর উপার্জনের প্রধান উপায়। পানচাষের সুবিধা হলো বহুবর্ষজীবী হওয়ায় বারবার লাগানোর খরচ নেই। ৫-৬ দিন অন্তর পান পাতা তুলে বাজারে বিক্রি করা যায় বছরভর।

ছয়ঘরিয়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, গ্রামটির চারপাশে যেদিকে চোখ যায় কেবলই পানের বরজ। কৃষকরা বরজের পরিচর্যা করছেন। বরজ থেকে পান সংগ্রহ করে বাড়ির উঠানে এনে স্তূপ করে রাখছেন। সেখানে পরিবারের সদস্যরা মিলে পান বাছাই করে আলাদা করে রাখছেন। গ্রামটিতে বর্তমানে সাড়ে তিনশ পানের বরজ রয়েছে।

চাষিরা জানান, উঁচু জমিতে পানের আবাদ করতে হয়। জমি তৈরির পর চারদিকে বেড়া ও ওপরে ছাউনি দিতে হয়। তারপরে পানের ডাল (পর) রোপণ করতে হয়। পানগাছ ওপরে বেয়ে উঠতে মাসখানেক পর শলা দিতে হবে। ৫০-৬০ দিনের মধ্যে পান বিক্রি করা যায়। পরিচর্যা ভালো হলে বরজটি একটানা ৮-১০ বছর রাখা যায়। খরচ যা হওয়ার তা শুরুতে হয়। পরে আর তেমন কোনো খরচ লাগে না। সে কারণে পানচাষ বেশ লাভজনক।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ছয়ঘরিয়া গ্রামটিতে ভোটার সংখ্যা এক হাজার ৭০০। পরিবার আছে প্রায় এক হাজার। ছোট-বড় মিলিয়ে পানের বরজ আছে ৩৫০টি। ১৯৯৮ সালের আগ পর্যন্ত এ এলাকায় দেশি পানের চাষ হতো। কিন্তু প্রতিযোগিতার বাজারে সেই পান টিকতে পারেনি। নদীভাঙনে টানা পাঁচ বছর পানচাষ হয়নি এই এলাকায়। পরে ২০০৩ সালের দিকে তালতলী ও বিক্রমপুরী এ দুই জাতের পান দিয়ে আবারও চাষ শুরু।

তালতলী পান সংগ্রহ করা হয় রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার মোহনপুর এলাকা থেকে। আর বিক্রমপুরী পান সংগ্রহ করা হয় মুন্সিগঞ্জ এলাকা থেকে। এলাকার চাহিদা মিটিয়ে এ পান এখন রংপুর, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, বগুড়া, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছে।

পানচাষি লাল মিয়া (৬০) জাগো নিউজকে বলেন, ‘এ এলাকায় কবে থেকে এ আবাদ শুরু হয়েছে জানি না। তবে দাদার আমল থেকে দেখে আসছি। নিজেও করেছি তবে কম। এবার মাত্র পাঁচ কাঠা জমিতে চাষ করেছি। মাটি, বাঁশ, কাশিয়া (ছাউনির উপকরণ) ও জুনসহ (একধরনের তার) সবকিছুর দাম বেড়ে গেছে। কাজের লোকও পাওয়া যায় না। সে কারণে পানচাষ কমে দিয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘মেয়ে দুটিকে বিয়ে দিয়েছি। বড় ছেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ছোট ছেলে স্থানীয় এক কলেজে পড়ছে। ছেলে দুটোর গতি হলেই এসব ছেড়ে দেবো ভাবছি।’

একই গ্রামের মমিনা বেওয়া (৫০) বলেন, ‘কয়েক বছর আগে স্বামী মারা গেছে। পান বিক্রি করেই দুই মেয়ের বিয়ে দিয়েছি। বড় ছেলে দিনাজপুর হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মেজ ছেলে গাইবান্ধা সরকারি কলেজে অনার্স ও ছোট ছেলে এবার এসএসসি দিয়েছে। বসতবাড়িসহ মোট জমি ৪০ শতাংশ। এরমধ্যে ১৭ শতাংশে পান লাগিয়েছি। সপ্তাহে এক গাদি করে পান তোলা যায়। বিক্রি হয় ৪-৫ হাজার টাকা। তবে বর্ষাকালে আরও বেশি পান তোলা যায়। পান বিক্রির অর্থ দিয়েই সব চলছে।’

আরেক পানচাষি আমজাদ হোসেন বলেন, পানের বরজ থেকে সারা বছরই পান সংগ্রহ করা যায়। তবে শীতকালে তুলনামূলক কম পান উৎপাদন হয়। কারণ শীতকালে পান পাতা বাড়ে কম। এসময় উৎপাদন কম হলেও বাজারে দাম থাকে বেশি।

চাষিদের অভিযোগ, কৃষি বিভাগের কাউকে তারা চেনেন না। প্রয়োজনে ফোন করলেও তাদের পাওয়া যায় না। পানচাষ টিকিয়ে রাখতে টিএসপি সারের দাম কমানোসহ পর্যাপ্ত সরবরাহের দাবি জানান তারা।

স্থানীয় উজান তেওড়া টিইউএম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুন্নবী সরকার বলেন, পানচাষ করেই ছয়ঘরিয়া গ্রামের মানুষ স্বাবলম্বী হয়েছে। এখানকার পান স্থানীয় বাজারের চাহিদা পূরণ করে জেলার বাইরেও যাচ্ছে। পানের আবাদ ধরে রাখলেই আর পেছনে ফিরে তাকাতে হবে না ছয়ঘরিয়াবাসীকে।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রাশিদুল কবির বলেন, দিন দিন এ উপজেলায় পানচাষ বাড়ছে। অন্যান্য ফসল আবাদের তুলনায় পানচাষ লাভজনক।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা