• বুধবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৬ ১৪২৮

  • || ১৩ সফর ১৪৪৩

সমুদ্র উপকূলে ডাইনোসরের পায়ের ছাপ, আতঙ্কে ব্রিটেনবাসী!

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২২ জুন ২০২১  

যুক্তরাজ্যে হদিশ মিলেছে অন্তত ১১০ মিলিয়ন বছর আগে ডাইনোসরের পায়ের ছাপের। সম্প্রতি হেস্টিংস মিউজিয়াম অ্যান্ড আর্ট গ্যালারির কিউরেটর ফিলিপ হ্যাডল্যান্ড এই পায়ের ছাপগুলো আবিষ্কার করেছেন। যিনি একাধারে ব্রিটেনের পোর্টসমাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈজ্ঞানিকও বটে।

তিনি জানিয়েছেন,যুক্তরাজ্যের কেন্ট এলাকায় পাথরের গায়ে ছয়টি ভিন্ন প্রজাতির ডাইনোসরের পায়ের ছাপ পাওয়া গেছে। এই এলাকাটি মূলত ঝড়-বৃষ্টি প্রবণ। উপকূল এলাকায় পানির তোড়ে প্রায়ই নতুন জীবাশ্মের হদিশ মেলে সেখানে।

প্রাণী ও উদ্ভিদবিদ্যার অধ্যাপক ডেভিড মার্টিল বলেন, এই প্রথম পাথরের স্তরে এই ধরণের পায়ের ছাপ দেখা গেল। এটাকে ফোকস্টোর ফরমেশন বলা হয়। এটা খুবই বিরল ঘটনা। হয়ত শেষ জীবন্ত ডাইনোসরের পা পড়েছিল এই পাথরগুলোর উপরেই।

তিনি আরো বলেন, পায়ের ছাপগুলো দেখে বোঝা যাচ্ছে এগুলো আলাদা আলাদা প্রজাতির। অনুমান করা যায় দক্ষিণ ইংল্যান্ডের এই অংশে একাধিক প্রজাতির ডাইনোসর ছিল। 

এই পায়ের ছাপ আনুমানিক ১১০ মিলিয়ন বছর পুরনো বলেও জানিয়েছেন তিনি। বিজ্ঞানীদের ধারণা পিঠে কাঁটাজাতীয় অ্যাঙ্কিলোসরাস, তিন পা বিশিষ্ট থেরোপডস, মাংসাশী টাইরেনোসরাস, টাইরেনোসরার রেক্স, তৃণভোজী ও ডানা বিশিষ্ট অর্নিথোপডসের পায়ের ছাপ এগুলো।

কিউরেটর ফিলিপ হ্যাডল্যান্ড বলেন, ২০১১ সাল থেকেই কেন্ট এলাকার পাথরে অস্বাভাবিক কিছু লক্ষ্য করেছিলাম। অনেকবার এই ছাপ লক্ষ্য করা গেছে। বহুদিন ধরেই অনুসন্ধান চালাচ্ছিলাম। কিন্তু জোয়ারের পানিতে ভূমিক্ষয় হওয়ায় ধীরে ধীরে এই পায়ের ছাপ আরও স্পষ্ট হয়। প্রথমে সেটাকে হাতির পায়ের ছাপ মনে হলেও পরে আরও খতিয়ে দেখে বোঝা যায় এটি অর্নিথোপডিক্স নামে বিলুপ্ত প্রজাতির কোনো প্রাণীর।

গবেষণায় জানা গেছে, ১১০ মিলিয়ন বছর আগে চীনেও এই জাতীয় ডাইনোসরাসের অস্তিত্ব ছিল । ৬৫ থেকে ৮০ সেন্টিমিটার আকৃতির এই পায়ের ছাপ সেই সময়কার ডাইনোসরের পায়ের আকৃতির সঙ্গে হুবহু মিলে যাচ্ছে।  এ ব্যাপারে অধ্যাপক মার্টিল বলেন, এত যুগ পর এই জায়গায় ডাইনোসরাসের পায়ের ছাপ মেলা সত্যিই রোমহর্ষক!

সূত্র: এই সময়

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা