বৃহস্পতিবার   ১৮ এপ্রিল ২০২৪ || ৪ বৈশাখ ১৪৩১

প্রকাশিত: ১৮:৪৩, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

শরীরে নীরবে বাসা বাঁধে যেসব কঠিন রোগ, জেনে নিন লক্ষণগুলোও

শরীরে নীরবে বাসা বাঁধে যেসব কঠিন রোগ, জেনে নিন লক্ষণগুলোও
সংগৃহীত

বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন ধরনের রোগ আছে। তবে এগুলোর মধ্যে বেশ কিছু রোগের এখনও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। উদ্বেগের বিষয় হলো, এমন কিছু রোগ আছে যা শরীরে বাসা বাঁধে ও আপনাকে নীরবে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়, কিন্তু তা কেউ টেরই পান না।

তবে রোগ যাই হোক না কেন, বিশেষজ্ঞরা একমত যে প্রাথমিক রোগ নির্ণয় ও এর চিকিৎসা পুনরুদ্ধারকে আরো সহজ করে তোলে। রোগের উপসর্গ বা লক্ষণ জানা গেলে যদিও প্রাথমিক অবস্থায় ব্যবস্থা নেওয়া যায়, তবে কিছু রোগ আছে যেগুলো শানাক্তে অনেক দেরি হয়ে যায়।

যেসব রোগের উপসর্গ দেখা দেয় না, তাদেরকে নীরব ঘাতক বলা হয়। দুর্ভাগ্যবশত অনেক দেরি হয়ে গেলেই সেগুলো আবিষ্কৃত হয়।

আজ তেমনই কিছু নীরব ঘাতক রোগ ও এর লক্ষণগুলো সম্পর্কে জেনে নিন।

উচ্চ রক্তচাপ: এফডিএ-র রিপোর্ট অনুযায়ী, উচ্চ রক্তচাপ বা বিপি সবচেয়ে বড় নীরব ঘাতক রোগ। বেশিরভাগ লোকের মধ্যেই এর কোনো লক্ষণ দেখা যায় না প্রাথমিক অবস্থায়। যদি এর চিকিৎসা না করা হয় তবে এটি হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক’সহ হার্ট সংক্রান্ত বিভিন্ন রোগের কারণ হতে পারে।

উচ্চ কলেস্টেরল: উচ্চ কোলেস্টেরলকেও নীরব ঘাতক বলা হয়, কারণ এর মাত্রা খুব বেশি না হওয়া পর্যন্ত এটি রোগীদের মধ্যে কোনো উপসর্গ সৃষ্টি করে না।

উচ্চ কোলেস্টেরল ঘটে যখন রক্তে এলডিএল বা ‘খারাপ’ কোলেস্টেরল নামক চর্বিযুক্ত পদার্থের অত্যধিক পরিমাণে জমা হয়। এটি চর্বিযুক্ত, প্রক্রিয়াজাত খাবার, অ্যালকোহল সেবন ও ধূমপানের মতো বিষাক্ত অভ্যাস ও ব্যায়ামের অভাবের কারণে ঘটে।

ডায়াবেটিস: ডায়াবেটিস ডট অর্গের রিপোর্ট অনুযায়ী, ডায়াবেটিস দেখা দেয় যখন রোগীর রক্তে অত্যধিক গ্লুকোজ বা চিনির মাত্রা বেড়ে যায়। এটি তখনই হয়, যখন অগ্ন্যাশয় পর্যাপ্ত ইনসুলিন উৎপাদন করে না বা যখন শরীর কার্যকরভাবে ইনসুলিন ব্যবহার করতে পারে না।

এটি একটি নীরব রোগ। এটিকে ‘নীরব ঘাতক’ বলা হয় কারণ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে রোগীরা জানেন না যে, তারা ডায়াবেটিসে ভুগছেন। রোগটি যখন একটি উন্নত পর্যায়ে পৌঁছে যায় তখনই লক্ষণগুলো আরও স্পষ্টভাবে প্রকাশ পায়।

ফ্যাটি লিভার: ফ্যাটি লিভার ডিজিজ ২ ধরনের হতে পারে- নন অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ ও অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ, যা অ্যালকোহলিক স্টেটোহেপাটাইটিস নামেও পরিচিত।

নন অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ হলো এক ধরনের ফ্যাটি লিভার, যা অ্যালকোহল সেবনের সঙ্গে সম্পর্কিত নয়, যেখানে অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ ভারী অ্যালকোহল সেবনের কারণে হয়।

ফ্যাটি লিভার রোগ ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে, আবার এর লক্ষণও তেমন প্রকাশ পায় না। এজন্যই এই ব্যাধিকে নীরব ঘাত বলা হয়।

নন অ্যালকোহলিক বা অ্যালকোহলিক ফ্যাটি লিভার ডিজিজ এক সময় মারাত্মক লিভার সিরোসিস বা লিভার ক্যানসারের কারণ হতে পারে।

সূত্র: ডেইলি-বাংলাদেশ

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

সর্বশেষ

শিরোনাম

ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ভাতা বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপনদেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীরঈদে বেড়েছে রেমিট্যান্স, ফের ২০ বিলিয়ন ডলারের ওপরে রিজার্ভ১৪ কিলোমিটার আলপনা বিশ্বরেকর্ডের আশায়তাপপ্রবাহ বাড়বে, পহেলা বৈশাখে তাপমাত্রা উঠতে পারে ৪০ ডিগ্রিতেনেইমারের বাবার দেনা পরিশোধ করলেন আলভেজ‘ডিজিটাল ডিটক্স’ কী? কীভাবে করবেন?বান্দরবানে পর্যটক ভ্রমণে দেয়া নির্দেশনা চারটি স্থগিতআয়ারল্যান্ডের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দনসুইজারল্যান্ডে স্কলারশিপ পাওয়ার উপায় কিবৈসাবি উৎসবের আমেজে ভাসছে ৩ পার্বত্য জেলাসবাই ঈদের নামাজে গেলে শাহনাজের ঘরে ঢুকে প্রেমিক রাজু, অতঃপর...