বৃহস্পতিবার   ২৩ মে ২০২৪ || ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১০:৩৮, ৪ মে ২০২৪

আপডেট: ১১:০৮, ৪ মে ২০২৪

সাদুল্লাপুরে হেলিকপ্টারে চড়ে পোশাক শ্রমিকের বিয়ে

সাদুল্লাপুরে হেলিকপ্টারে চড়ে পোশাক শ্রমিকের বিয়ে
সংগৃহীত

কথায় আছে, শখের তোলা আশি টাকা। অর্থাৎ শখ পূরণ করতে উদ্যোগ নেওয়া বা অর্থ খরচ করতে সংকোচ না করা। এ রকমই নিজের শখ পূরণ করতে একমাত্র ছেলে হজরত আলী (২২) কে বিয়ে করতে এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা দিয়ে হেলিকপ্টার ভাড়া করেছেন মোঃ রফিকুল আকন্দ ও সালমা বেগম দম্পতি। 

মোঃ রফিকুল আকন্দ গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ড সদস্য ও বুজরুক জামালপুর গ্রামের বাসিন্দা। সালমা বেগম গৃহিনী। তাদের ছেলে বর হজরত আলী একজন পোশাক শ্রমিক।

ভাতগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মাহফুজার রহমান মাফু জানান, কনে রিফা মনি (১৮) একই উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের ইসবপুর (পুর্বপাড়া) গ্রামের এনামুল হক ও শেফালি বেগম দস্পতির মেয়ে।

তিনি আরও জানান, বর-কনের বাড়ির দূরত্ব মাত্র ৫ কিলোমিটার। একই উপজেলার দুই ইউনিয়নের দু’টি গ্রামের বাসিন্দা তারা। কিন্তু দূরত্ব যাই হোক না কেন। রফিকুল আকন্দ ও সালমা বেগম দম্পতির স্বপ্ন ছিল ছেলেকে বিয়ে করাবেন হেলিকপ্টার যোগে। ঠিক যেমন স্বপন, তেমন কাজ। অবশেষে বাবা-মায়ের সেই স্বপ্নপূরণ করলেন হজরত আলী। 

শুক্রবার বিকেলে উপজেলার ভাতগ্রাম হাইস্কুল এন্ড কলেজ মাঠে হেলিকপ্টারে উঠেন বর হজরত আলী। একই উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের খোর্দ্দরসুলপুর গ্রামের আমিনুর রহমান নান্নুর ইট ভাটার ফাঁকা মাঠে অবতরন করেন। এই দুই স্থানে হেলিকপ্টার দেখতে উৎসুক জনতা ভীড় করেন। 

হেলিকপ্টার চড়ে বর আসায় মেয়ের বাবা এনমামুল হক ও মা শেফালি বেগম মহাখুশি। তারা বলেন, জামাই হেলিকপ্টার চড়ে আমাদের মেয়েকে বিয়ে করতে এসেছে। বিষয়টি খুবই আনন্দের। 

এ বিষয়ে বরের বাবা মোঃ রফিকুল আকন্দ ও মা সালমা বেগম জানান, হজরত আলী তাদের এক মাত্র ছেলে। সে এখন ঢাকার একটি পোশাক কারখানায় চাকুরি করে। 

তারা আরও জানান, এই ছেলেটি জন্মের পর থেকে তারা স্বপ্ন বুনেন ছেলেকে হেলিকপ্টারে চড়ে বিয়ে করাবেন। এরই ধারাবাহিকতায় আজ শুক্রবার বিকেলে আকাশ পথে গিয়ে বিয়ে করলেন হজরত আলী। 

মোঃ রফিকুল আকন্দ বলেন, অনেক দিনের ইচ্ছেপূরণ করতে পেরে খুব ভালো লাগছে। তিনি জানান, এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা দিয়ে এই হেলিকপ্টার ভাড়া করেছিলেন। 

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

সর্বশেষ