বুধবার   ১৯ জুন ২০২৪ || ৬ আষাঢ় ১৪৩১

প্রকাশিত: ১০:২৫, ২০ নভেম্বর ২০২৩

পলাশবাড়ীর মনোহরপুর ইউপি ভবনে দৃষ্টিনন্দন ছাদ-বাগান

পলাশবাড়ীর মনোহরপুর ইউপি ভবনে দৃষ্টিনন্দন ছাদ-বাগান
সংগৃহীত

দিন-দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে ছাদবাগান। পৌরশহর ছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বাসা-বাড়ির ছাদে শোভা পাচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ফলজ-ভেষজসহ বিভিন্ন ধরনের সবজির বাগান। এসব বাগানে উৎপাদিত ফল এবং সবজি চাহিদা পূরণের পাশাপাশি ভেষজ গাছ ভূমিকা রাখছে রোগ নিরাময়ে। 

সম্প্রতি উপজেলার মনোহরপুর ইউপি কার্যালয়ের ভবনের ছাদে দৃষ্টিনন্দন ফলজ গাছের বাগান সকলে দৃষ্টি কেড়েছে। এই প্রথম এ উপজেলার কোন ইউপি ভবনে ছাদবাগান। এই ভবনের ছাদ বাগানে রয়েছে দেশী-বিদেশী বিভিন্ন জাতের ফলের গাছ। ইউপি চেয়ারম্যান মো. আব্দুর ওহাব প্রধান রিপনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ইউপি সদস্য-ইউপি সচিবসহ পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় গড়ে ওঠা দৃষ্টিনন্দন এই ছাদবাগান। 

ইউপি চেয়ারম্যান রিপন জানান, গাইবান্ধা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এক কর্মশালায় গিয়ে জেলা প্রশাসকের আলোচনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ইউপি ভবনের ছাদে ফলজ বাগান করার সিদ্ধান্ত নেয়। পরবর্তীতে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের পরামর্শে পুরো ভবনের ছাদে মাটির বড় বড় টবে দেশী-বিদেশী ফলের চারা সংগ্রহ করে রোপন করি। চলতি বছরের মে মাসে ছাদবাগানটির কাজ শুরু হয়। বাগানটিতে উন্নতজাতের ১১ প্রজাতির মিষ্টি আম, বারো মাসি কাঁঠাল, পেয়ারা, আমড়া, লেবু, কমলা, আঙ্গুর, আপেল, ডালিমসহ প্রায় ২০/২৫ প্রকার ফলজ চারা রোপন করা হয়। আমার এ উদ্যোগ দেখে এলাকার মানুষজন অনুপ্রাণিত হয়ে তাদের বাসা-বাড়ীর ছাদে এরকম ছাদবাগান করা শুরু করেছেন। এ বাগানের ফল দিয়েই আগামীতে ইউপি ভবনে আগত অতিথিদের আপ্যায়ন করার প্রত্যাশার কথাও জানান ইউপি চেয়ারম্যান। এলাকার অনেক মানুষ ইউপি ভবনের সুন্দর গোছালো ছাদবাগান দেখার জন্য প্রায় প্রতিদিন ভীড় করেন। এদের অনেকেই মুগ্ধ হয়ে নিজ নিজ ছাদে ফুল ও ফলজ বাগান শুরু করে দিয়েছেন। 

উল্লেখ্য; চেয়ারম্যান রিপন একজন প্রকৃতি-প্রেমী মানুষ। গ্রামের সুন্দর প্রকৃতি ফুল, ফল বৃক্ষের প্রতি ছোট বেলা থেকেই তাঁর ভীষন টান। তাঁর বসতবাড়ীর আঙ্গিনাও ফুল ও ফলের গাছ দিয়ে ভরপুর। 

সর্বশেষ

সর্বশেষ