সোমবার   ২২ এপ্রিল ২০২৪ || ৮ বৈশাখ ১৪৩১

প্রকাশিত: ০৬:০৩, ২৬ জুন ২০২৩

বিবাহিত পুরুষরা বাথরুমে বেশি সময় কাটান যেসব কারণে

বিবাহিত পুরুষরা বাথরুমে বেশি সময় কাটান যেসব কারণে

প্রশ্ন: আমি একজন বিবাহিত নারী। অনেক বছর হল আমাদের বিয়ে হয়েছে। আমার বিবাহিত জীবনে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু আমার স্বামীর একটা অভ্যাস নিয়েই সমস্যা আছে। সেটা নিয়েই অস্বস্তিতে পড়তে হয় আমায়। আসলে সারাদিন কাজ করার পর বাড়ি ফেরে আমার স্বামী।

সেটা কোনো বড় কথা নয়। কিন্তু বাড়ি এসে বেশিরভাগ সময় ও বাথরুমেই থাকে। সবসময় নিজের ইয়ারফোন নিয়েই বাথরুমে যায়। বাথরুমেই বসে থাকে যতক্ষণ না পর্যন্ত আমি ওকে রাতের খাবার খেতে ডাকি।

যখনই ও বাড়িতে থাকে, তখনই ও এমন করে। আমি জানি না ও ভিতরে কী করে। কী করব বুঝতে পারি না, কীভাবে সব ঠিক করব তাও বুঝতে পারি না। অনুগ্রহ করে কোনো বিশেষজ্ঞ পরামর্শ দিয়ে আমায় সাহায্য করুন। সম্পূর্ণ ঘটনা বলছি।

এআইআর ইনস্টিটিউট অব রিয়েলাইজেশন এবং এআইআর সেন্টার অব এনলাইটেনমেন্ট-এর প্রতিষ্ঠাতা রবি এই বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন। প্রত্যেক বিয়ের সম্পর্ক খুব সুন্দর হয়। যত্ন করে তাকে লালন পালন করতে হয়। স্বামী-স্ত্রী হয়ত সব পদক্ষেপে একে অপরকে সাপোর্ট নাও করতে পারেন।

জীবনের সব সময় একরকমভাবে মসৃণ নাও হতে পারে। কিন্তু দুই পক্ষকেই মানিয়ে নিতে হবে। যদি একে অপরের সঙ্গে মানিয়ে নিতে না পারেন, তাহলে সমস্যা একটু একটু করে বাড়বে। আপনার সম্পর্কের ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।

চুপ করে না থেকে কথা বলুন

আপনার স্বামী আপনাকে সময় দেয় না। তাই আপনাদের মধ্যে কথোপকথন প্রায় তলানিতে এসে ঠেকেছে। এরকম পরিস্থিতিতে আপনার স্বামীর সঙ্গে খোলাখুলি কথা বলা প্রয়োজন। কেন তিনি সারাদিন ব্যস্ত থাকার পর রাতে ফিরে ক্লান্ত হয়ে পড়েন। এই প্রশ্ন করা প্রয়োজন। বদলে তার উত্তরটাও শুনতে হবে।

আপনি তাকে পরিষ্কার করে বলুন যে, শিশুরা তার সঙ্গে সময় কাটাতে চায়। বাবার সঙ্গে সম্পর্ক আরও মজবুত এবং ভালো হতে পারে।

সবসময় অভিযোগ করবেন না

আপনার স্বামীর কাছে সব সময় অভিযোগ করবেন না। সমস্যা নিয়ে সারাক্ষণ কথা বলে গেলেও হবে না। এতে আপনার সমস্যা ঠিক হবে না। কারণ এতে আপনিও নিজের জন্য সময় পাবেন না। তাই আপনার স্বামীর সঙ্গ সরাসরি কথা বলুন। স্পষ্ট করে কথা বলুন। আপনাকে তাঁকে বুঝিয়ে বলতে হবে যে, এই সম্পর্ক থেকে আপনি কী চান।

আপনার স্বামীকে যে কোনোভাবে কাছে টানার চেষ্টা করন। আমি মানছি যে, মানসিক ঘনিষ্ঠতা না থাকলে মহিলাদের জন্য শারীরিক সম্পর্কে মনোযোগ দেওয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। কিন্তু তাও স্বামীর সঙ্গে সম্পর্ক ঠিক রাখার চেষ্টা করুন।

বিয়ে মানে একটা সুন্দর সম্পর্ক। একে অপরকে ঠিক রাখার ও একে অপরের সঙ্গে ভালোভাবে থাকার জন্য নানা পদ্ধতিই কাজে লাগাতে হবে আপনাকে। চেষ্টা করে যেতে হবে। এর মধ্যে নিজের জন্যেও সময় খুঁজে নিতে হবে। আপনার স্বামীর সঙ্গে সব ভাবনা শেয়ার করতে হবে। একে অপরের সমস্যার কথা শুনতে হবে। দুজনেই এফোর্ট দিলে একমাত্র আপনার বিবাহিত জীবন ঠিকঠাক চলবে। নাহলে বিয়ে ভাঙতে খুব বেশি সময় লাগবে না। আপনাদের বাচ্চাও আছে। তাই সবার কথা খেয়াল রাখুন। আপনাদের সম্পর্কে এগিয়ে যাবে।

আসল ঘটনাটি যেরকম...

আমি একজন কর্মরত মহিলা। আমাকেও সারাদিন কাজ করার পর বাড়ি ফিরতে হয়। যখন আমার স্বামী বাড়ি ফেরে। আমি বাচ্চাদের সঙ্গে সময় কাটাই। কিন্তু আমার স্বামী আমাদের সঙ্গে সময় কাটায় না। ওর এই ব্যবহারে আমরা সবাই খুব দুঃখ পাই। যেন এই বিয়েতে সব দায়িত্ব একার আমার। ওর কোনো দায়িত্বই নেই। আমিও বাড়ি ফিরে খুব ক্লান্ত হয়ে পড়ি। কিন্তু ওর মতো কখনো করি না। কারণ আমি আমার পরিবারকে খুব ভালোবাসি।

কিন্তু ও যে কাজটা করে, তা কি ঠিক? এমনকি আমাদের মধ্যে কথাও হয় না। ও রাতে শুতে আসার পর মোবাইল নিয়েই ব্যস্ত থাকে। যতক্ষণ জেগে থাকে, মোবাইলেই ব্যস্ত থাকে। বাচ্চাদের নিয়েও আমার ভয় হয়। ওরা ওদের বাবার থেকে ধীরে ধীরে দূরে সরে যাচ্ছে। কীভাবে এই বিয়ে টিকিয়ে রাখব আমি? জানি না।

দৈনিক গাইবান্ধা

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

শিরোনাম

ইন্টার্ন চিকিৎসকদের ভাতা বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপনদেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীরঈদে বেড়েছে রেমিট্যান্স, ফের ২০ বিলিয়ন ডলারের ওপরে রিজার্ভ১৪ কিলোমিটার আলপনা বিশ্বরেকর্ডের আশায়তাপপ্রবাহ বাড়বে, পহেলা বৈশাখে তাপমাত্রা উঠতে পারে ৪০ ডিগ্রিতেনেইমারের বাবার দেনা পরিশোধ করলেন আলভেজ‘ডিজিটাল ডিটক্স’ কী? কীভাবে করবেন?বান্দরবানে পর্যটক ভ্রমণে দেয়া নির্দেশনা চারটি স্থগিতআয়ারল্যান্ডের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দনজুমার দিনে যেসব কাজ ভুলেও করতে নেইগোবিন্দগঞ্জে কাজী রাশিদা শিশু পার্কের উদ্বোধনইউরোপের চার দেশে বাংলাদেশি শ্রমিক নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু