বৃহস্পতিবার   ১৮ জুলাই ২০২৪ || ২ শ্রাবণ ১৪৩১

প্রকাশিত : ১২:২৯, ২০ নভেম্বর ২০২৩

আপডেট: ১২:৩৩, ২০ নভেম্বর ২০২৩

গাইবান্ধা জেলা পুলিশের সকল ইউনিটের পতিত জায়গায় মৌসুমি শাকসবজি চাষ

গাইবান্ধা জেলা পুলিশের সকল ইউনিটের পতিত জায়গায় মৌসুমি শাকসবজি চাষ
সংগৃহীত

গাইবান্ধা জেলা পুলিশের সকল ইউনিটের পতিত জায়গায় বিভিন্ন রকম মৌসুমি শাকসবজি চাষ করা হচ্ছে। উৎপাদিত শাক-সবজি ক্ষেত থেকে তুলে থানার পুলিশ সদস্যদের পরিবারের অনেকটা চাহিদা পূরণ করছে। পুলিশ সুপার মো. কামাল হোসেনের উদ্যোগে বিভিন্ন রকম সবজি চাষ করা হচ্ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, পুলিশ লাইন্স, থানা চত্ত্বর, ফাঁড়ি ও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিত্যক্ত জায়গায় সুসজ্জিত সবজির ক্ষেত। এখানে পেঁপে, ফুলকপি, বাঁধাকপি, সবুজ শাক, লাল শাক, মূলা শাক, বেগুন, রসুন, পেঁয়াজ, টমেটো ও শসাসহ বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ করা হয়েছে। সবজি বাগানের পরিচর্যা ও দেখভালের দায়িত্বে আছেন সংশ্লিষ্ট থানা বা পুলিশ লাইনের পুলিশ সদস্যরা।

গাইবান্ধা পুলিশ সুপার মো. কামাল হোসেন বলেন, 'দেশের এক ইঞ্চি জমিও যেন পতিত না থাকে' প্রধানমন্ত্রীর ওই নির্দেশনা বাস্তবায়নে পতিত জায়গায় সবজির বাগান করতে হবে। তারই ধারাবাহিকতায় জেলার বিভিন্ন থানার চারিদিকে নানা রকম শাক-সবজি চাষ করেছি। এক সবজি ওঠার পরেই আবার নতুন করে সবজি চাষ করা হয়। যা পুলিশ সদস্যদের অনেকটা চাহিদা পূরণ করছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. খোরশেদ আলম বলেন, এটা খুবই ভালো উদ্যোগ। কৃষি বিভাগ থেকে তাদের সবধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে। এ ছাড়াও বিভিন্ন সরকারি অফিস প্রাঙ্গণ ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আঙিনায় সবজি চাষাবাদের জন্য কৃষি বিভাগ কাজ করে যাচ্ছে।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়

সর্বশেষ