• শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২১ ১৪২৯

  • || ১১ রজব ১৪৪৪

সুন্দরগঞ্জে ৫ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে তীর প্রতিরক্ষা কাজ চলমান

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১৬ জানুয়ারি ২০২৩  

গাইবান্ধা জেলা শহর থেকে পূর্ব দিকে বাংলাদেশের বড়নদী ব্রহ্মপুত্র নদ অবস্থিত। শহরের এক প্রান্ত দিয়ে প্রবাহিত ঘাঘট নদী আর সুন্দরগঞ্জ উপজেলার একাংশে তিস্তা নদী। তিস্তার উজানে কুড়িগ্রামসহ সুন্দরগঞ্জ উপজেলার হাজার হাজার মানুষ বাস্তুভিটাহীন। মানুষের দুর্দশা তথা তিস্তার ভাঙন রোঁধে সরকার উপজেলার হরিপর ইউনিয়নের কারেন্ট বাজার এলাকায় ১০০০ (এক হাজার) মিটার প্রাথমিক তীর প্রতিরক্ষা বাঁধের জন্য প্রায় ৫ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

কুড়িগ্রাম পওর বিভাগের আওতায় তিস্তা নদীর বাম তীরের ভাঙন হতে রক্ষার্থে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নের কারেন্ট বাজার এলাকায় ১ হাজার মিটার তীর প্রতিরক্ষা কাজ চলমান রয়েছে। প্রায় ৫ কোটি ৭৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে (২৮ ফেব্রুয়ারি) কাজটি সমাপ্তির জন্য নির্ধারিত। 

প্যাকেজটির আওতায় ২৫০ কেজি ওজনের ৭৫ হাজার জিও ব্যাগ ডাম্পিং এবং ৮১ হাজার ৭৪৬টি ৭৫ কেজি ওজনের স্যান্ড সিমেন্ট পানি ব্যাগ প্লেসিং এর কাজ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ইতোমধ্যে প্যাকেজটির আওতায় ৯ হাজার ৯৭৮টি ২৫০ কেজি ওজনের জিও ব্যাগ টাক্সফোর্স কর্তৃক গণনা করে ডাম্পিং করা হয়েছে। বর্তমানে ১৬৮০১ টি বালু ভর্তি জিও ব্যাগ টাক্সফোর্স এর গণনার অপেক্ষায় ছিল। 

সরেজমিনে দেখা যায়, উক্ত কাজে ব্যবহৃত জিও ব্যাগ ও জিও ব্যাগ ভরাটে ব্যবহৃত বালির মান ভালো। এছাড়া কাজটির অগ্রগতি তরান্বিত হচ্ছে মর্মে প্রতীয়মান হয়েছে। উল্লেখিত কাজটি বর্ষা মৌসুমের পূর্বে শেষ করার জন্য স্থানীয় জনসাধারণ জোড় তাগাদা জানিয়েছে। এছাড়া বালু ভর্তি জিও ব্যাগের গুণগত মান সঠিকতা যাচাইয়ের জন্য (১৪ জানুয়ারি) জনাব মো: মাহবুবর রহমান, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী, উত্তরাঞ্চল বাপাউবো, রংপুর এবং বাপাউবো অধীনে পরিচালিত টাক্সফোর্সের প্রতিনিধি পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শনকালে অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী, উত্তরাঞ্চল রংপুর কাজের গুণগতমান নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং সিডিউলে উল্লেখিত স্পেসিফেকিশন অনুযায়ী বালু দিয়ে জিও ভরাট হচ্ছে মর্মে উপস্থিত সকলে অবহিত হন। পাশাপাশি কাজটি বর্ষা মৌসুমের পূর্বেই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সমাপ্ত হবে বলে জানিয়েছেন।

পরিদর্শনকালে নির্বাহী প্রকৌশলী জনাব আব্দুল্লাহ আল মামুন, কুড়িগ্রাম পওর বিভাগ, বাপাউবো, কুড়িগ্রাম ও কাজে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। 

নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, কাজটি আমরা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করতে পারব বলে আশা করছি। জলবায়ু পরিষদ গাইবান্ধার সদস্য সচিব এ্যাড. জি.এস আলমগীর বলেন, হরিপুরের কারেন্ট বাজার এলাকায় তীর প্রতিরক্ষা বাঁধের কাজ চলছে এটি নি:সন্দেহে ভালো খবর। তবে শুধু হরিপুর নয় গাইবান্ধার কামারজানী ও বালাসীঘাট এলাকায় ভাঙন রোধে এ ধরণের প্রকল্পের দাবি জানান তিনি।

স্থানীয় খয়বর হোসেন জানান, সরকারের এ ধরনের উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। কাজটি শেষ হলে এলাকার মানুষ সুফল পাবে।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা