• মঙ্গলবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২১ ১৪২৯

  • || ১০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

পলাশবাড়ীতে বিআরডিবির প্রশিক্ষণ নিয়ে শতরঞ্জিতে সফল নারী উদ‍্যোক্তা

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১১ নভেম্বর ২০২২  

গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার বেতকাপা ইউনিয়নের পারআমলাগাছী গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমানের স্ত্রী সফল উদ‍্যোক্তা লাইজু বেওয়া শতরঞ্জির কাজ করে জীবন পাল্টে ফেলেছেন। তিনি প্রথমে ২০১৪ সালে পলাশবাড়ী বিআরডিবি অফিস থেকে ৬০ দিনের প্রশিক্ষণ নিয়ে তাদের দেওয়া ১৩ হাজার টাকা ও শতরঞ্জির সরঞ্জাম নিয়ে হাতের মাধ্যমে পাপস,ওয়ালমেট,জায়নামাজ ও কার্পেট তৈরি করেন।

এরপর পলাশবাড়ী মহিলা অধিদপ্তরের আয়োজনে ৭ দিনের আইজিএ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন এবং এখান থেকেও ৭ হাজার টাকা অনুদান পান। তারপর ২০১৯ সালে গ্রামের ১৫ জন মহিলা নিয়ে পলাশবাড়ী গণউন্নয়ন কেন্দ্রের মাধ্যমে দুই মাসের শিব প্রজেস্টে প্রশিক্ষণ গ্রহন করেন। প্রশিক্ষণ শেষে গণউন্নয়ন কেন্দ্র থেকে শতরঞ্জির মেশিনসহ ৫০ হাজার টাকার চেক প্রদান করেন। এরপর পাল্টে যায় সফল নারী উদ‍্যোক্তা লাইজুর জীবন ।

তিনি পাপস প্রতিফিট বিক্রি করেন ৫০ টাকায়। একটি মেশিন থেকে প্রতিদিন ৫ থেকে ৭ টি পাপস তৈরি করা যায়। তিনটি মেশিন থেকে গড়ে প্রতিদিন ১৭ থেকে ২০ টি পাপস তৈরী হয়।

সফল নারী উদ‍্যোক্তা লাইজু জানান,আমার মেয়ের বয়স যখন সাড়ে তিন বছর তখন রোড এক্সিডেন্টে আমার স্বামী মারা যান। তখন স্বামীর বাড়ী থেকে মেয়েকে নিয়ে বাবার বাড়ীতে চলি আসি। শিশু সন্তানকে নিয়ে বাবার বাড়ীতে হতাশায় পড়ি। কি করব ভেবে পাচ্ছিলাম।

তারপর এলাকার একজনের মাধ্যমে ২০১৪ সালে পলাশবাড়ী বিআরডিবি অফিসে শতরঞ্জির উপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি। তারা আমাকে শতরঞ্জির সরঞ্জামসহ ১৩ হাজার টাকা প্রদান করেন।

এরপর ২০১৯ সালে গ্রামের মহিলাদের নিয়ে গণউন্নয়ন কেন্দ্রের উৎপাদক দল গঠন করি। তাদের দেওয়া মেশিন,সুতা,সুতার মেশিন দিয়ে পাপস,কূশন,জায়নামাজ,ওয়ালমেট তৈরি করে বাজারজাত করছি। এসব পূণ্য কারখানা থেকে ও গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে ক্রেতারা এসে পাইকারি দরে কিনে নিয়ে যায়।

এখন আমার প্রতিমাসে ২০ থেকে ২৫ হাজার ইনকাম হচ্ছে । বাকী সদস্যদেরও প্রতি মাসে ৮ হাজার ১০ হাজার টাকা ইনকাম হচ্ছে। পাপস ১৮ বাই ২৪ দুইশ টাকা,২০ বাই ৩০ তিনশ টাকা,আড়াই চার হাজার পঞ্চাশ টাকা, জুট পাপস ৬শ টাকা,ওয়ালমেট ৫শ টাকা মেঝের কার্পেট ফিট ডিজাইন অনুসারে ৯০ টাকা বিক্রি করি। পলাশবাড়ী,গোবিন্দগঞ্জ ও রংপুরে যায় পাশাপাশি কারখানা থেকেও বিক্রি হয়।
বিআরডিবির শতরঞ্জি প্রশিক্ষণ নিয়ে হাওয়া বেগম স্বামী মন্টু মিয়া তিনিও সংসারে সচ্ছলতা এনেছেন।

মাহমুদা বেগম,রিক্তা ও উর্মিলা বিআরডিবির প্রশিক্ষণ নিয়ে লাইজুর শতরঞ্জি কারখানায় কাজ করছেন। তাদের দাবী বিআরডিবি থেকে যদি টেবিল ম‍্যাট প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় তাহলে তারা আরো বেশি সফল হতে পারবেন।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা