• শনিবার   ২১ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪২৯

  • || ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩

এমদাদুলের সুস্থতায় পাশে থাকবে সাদুল্লাপুর সমাজসেবা অধিদফতর

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২২  

শেকলবন্দি জীবন এমদাদুল হকের। হঠাৎ করে মানসিক ভারসাম্য হারান তিনি। অস্বাভাবিক আচরণ করতে থাকায় তার মা শেকলবন্দি করে রাখেন তাকে। বহু চেষ্টার পরও তাকে স্বাভাবিক জীবনে ফেরানো যায়নি, চার বছরের বেশি সময় কাটছে শেকলবন্দি জীবন। চিকিৎসকরা বলছেন, উন্নত চিকিৎসায় ভালো হয়ে উঠবে এমদাদুল। কিন্তু পাশে থাকা মায়ের সেই সামর্থ্য নেই। তাই সমাজের বিত্তবান ও সরকারের সহায়তা চান এমদাদুলের মা।

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরের বাসিন্দা এমদাদুল। ৫ বছর আগে বিয়ে করেন তিনি। পরিবার জানিয়েছে, বিয়ের পর হঠাৎ মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েন এমদাদ। লোকজনের ওপর চড়াও হওয়া, আসবাব-জিনিসপত্র ভাঙচুরসহ নানা অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করেন তিনি। এক পর্যায়ে সংসার ছেড়ে যান স্ত্রীও। বাধ্য হয়ে এমদাদকে শেকলবন্দি করে রাখেন মা।

স্থানীয়রা জানান, ১০ বছর আগে দিনমজুর বাবাকে হারান এমদাদুল। ৬ ভাইয়ের মধ্যে তিনি সবার ছোট। সবাই আলাদা থাকায় মাই তার একমাত্র ভরসা। এমদাদুলকে সুস্থ করে তুলতে সাধ্যমতো চিকিৎসা সেবা দেয়ার চেষ্টা করেন তমর্জিনা বেগম। এখন আর সেই অবস্থাও নেই তার।

এমদাদুলের অসুস্থতার খবর জেনে তার পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে উপজেলা সমাজ সেবা অধিদফতর। হাসপাতাল সমাজ সেবা কার্যক্রমের মাধ্যমে তাকে সব ধরনের সহযোগিতা দেয়া হবে বলেও জানান সাদুল্লাপুরের উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মানিক রায়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, উন্নত চিকিৎসা দেয়া গেলে এমদাদুল হক ফিরতে পারেন স্বাভাবিক জীবনে।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা