• শনিবার   ২৪ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ৮ ১৪২৮

  • || ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

কোরবানির ঈদের আগে যেসব প্রস্তুতি নেয়া জরুরি

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১৩ জুলাই ২০২১  

দুয়ারে কড়া নাড়ছে কোরবানির ঈদ। প্রত্যেক মুসলিম মেতে উঠবেন ঈদ আনন্দে। তাছাড়া এই ঈদে যেহেতু আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় পশু কোরবানি দেয়া হয়, তাই আনন্দটা যেন দ্বিগুণ হয়ে যায়।

ঈদে যেন কোনো কিছু নিয়ে ঝামেলা পোহাতে না হয় তাই আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রাখা জরুরি। এই উৎসবে নানা আয়োজনের জন্য আগেভাগেই প্রস্তুতি নিয়ে রাখলে ঈদের দিন অনেকটাই নিশ্চিন্ত হওয়া যায়। নিশ্চয়ই জানেন, করোনার কারণে গতবারের মতো এবারের ঈদও অনেকটাই ভিন্ন। চলতি মহামারির কারণে অনেকটাই থমকে গেছে চেনাজানা জীবনযাপন। কিন্তু সময় থমকে থাকে না। তাইতো সময়ের কাঁটা ঘুরে ঈদ আসে।

এবারের ঈদেও অন্যান্য প্রস্তুতির পাশাপাশি সচেতন থাকতে হবে আরও বেশি। সংক্রমণ থেকে বাঁচতে হলে থাকতে হবে আরও বেশি সতর্ক। তাই কিছু প্রস্তুতি আগে থেকেই নিয়ে রাখতে পারেন। এতে ঈদের দিনটিতে খুব বেশি ঝামেলা পোহাতে হবে না। প্রস্তুতি থাকলে সব কঠিন কাজই সহজ হয়ে যাবে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক কোন কোন বিষয়ে আমাদের প্রস্তুতি নিয়ে রাখা উচিত-

কোরবানির পশু জবাইয়ের প্রস্তুতি

করোনাভাইরাসের কারণে কোনোকিছুই আগের মতো নেই। তাই প্রয়োজনের সময় অনেককিছু না পাওয়াই স্বাভাবিক। সেজন্য কোরবানির পশু জবাই ও কাটাকুটি করার লোক আগে থেকেই ঠিক করে রাখুন। অলসতা করে দেরি করলে পরে লোক নাও মিলতে পারে। কোথায় জবাই করলে জায়গাটি সহজেই পরিষ্কার করা যাবে, সেদিকে খেয়াল রাখুন। কুরবানির মাংস বিলি করার সময় যেন মানুষের ভিড় না হয়, যেন সবাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দাঁড়াতে পারেন, সেই ব্যবস্থা করে রাখতে পারলে ভালো।

রান্নাবান্নার প্রস্তুতি

কোরবানির ঈদে রান্নার অংশটাই যেন বেশি। কোরবানির মাংস দিয়ে নানা পদের রান্না তো হয়-ই, পাশাপাশি পোলাও, মিষ্টান্ন, বিভিন্নরকম নাস্তাও তৈরি করা হয়। রান্নার কাজগুলো আগে থেকে অনেকটা গুছিয়ে রাখতে পারলে ঈদের দিন খুব বেশি চাপ পড়ে না। যেসব নাস্তা ঈদের দিন সকালে পরিবেশন করবেন তা আগেই তৈরি করে ফ্রোজেন করে রাখতে পারেন। পায়েশটা আগের রাতে রান্না করে ফ্রিজে রেখে দিতে পারেন। মাংস তো ঈদের আগে রান্না করা সম্ভব নয়। তবে মাংসের যাবতীয় মশলা তৈরি করে রাখতে পারেন। যাতে ঈদের দিন তাড়াহুড়ো না লাগে। পেঁয়াজ কাঁটা থেকে আদা-রসুন বাটা- সব আগেই সেরে রাখার ব্যবস্থা করুন। তাতে সময় বেঁচে যাবে অনেকটাই।

আপ্যায়নের প্রস্তুতি

করোনার কারণে ঈদে অতিথি আপ্যায়ন আগের মতো হবে না। সতর্ক মানুষেরা অন্যের বাড়িতে নাও যেতে পারে। তবে অনেকের ক্ষেত্রে তা মেনে চলা সম্ভব না-ও হতে পারে। বাড়িতে অতিথি এলে তাদের জীবাণুমুক্ত করে ঘরে প্রবেশের ব্যবস্থা রাখতে পারলে ভালো। যেসব থালা-বাসনে খাবার পরিবেশন করা হবে, তা আগে থেকেই ধুয়ে মুছে রেখে দিন। খাবার টেবিল, অন্যান্য আসবাব ঝেড়েমুছে পরিষ্কার করুন। বাড়ি জীবাণুমুক্ত করুন সম্ভব হলে। ঈদ উপলক্ষে ঘর সাজিয়ে-গুছিয়ে রাখুন। তাতে মনও ভালো থাকবে।

নিজের প্রতি একটু খেয়াল

বিভিন্নরকম কাজের পাশাপাশি খেয়াল রাখুন নিজেরও। ঈদে বাইরে বের হওয়া হবে না বলে এলোমেলো হয়ে থাকবেন না যেন। নিজেকেও গুছিয়ে নিন। নতুন জামা কেনা না হলে তুলে রাখা কোনো একটি ভালো পোশাক ধুয়ে ইস্ত্রি করে রাখুন। ঈদের দিন যেন আপনাকে দেখতেও পরিপাটি লাগে। মেয়েরা হাতে মেহেদি পরতে পারেন। তাতে উৎসবের আলাদা আমেজ আসে। ছেলেরা পাঞ্জাবি-পায়জামা, আতর প্রস্তুত রাখুন। ঈদের নামাজে পরিচ্ছন্ন ও পরিপাটি হয়ে যান। ঈদের সারাদিনটি কাজ করেই না কাটিয়ে নিজের জন্য কিছুটা সময় রাখার ব্যবস্থা করুন।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা