• শনিবার   ১০ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৯

  • || ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আবাসিক ভবন বানাচ্ছে দুবাই

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০২২  

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আবাসিক ভবন তৈরি হচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের উপসাগরীয় অঞ্চলের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের অন্যতম এমিরেত (প্রদেশ) ও বাণিজ্যিক কেন্দ্র দুবাইয়ে। আমিরাতি আবাসন কোম্পানি বিঙ্গাতি এবং মার্কিন ঘড়ি প্রস্তুতকারী কোম্পানি জ্যাকব অ্যান্ড কো.’র যৌথ অর্থায়নে নির্মাণ করা হবে ভবনটি।

ইতোমধ্যে বিঙ্গাতি এবং জ্যাকব অ্যান্ড কো. ‘বুর্জ বিঙ্গাতি জ্যাকব অ্যান্ড কো রেসিডেন্স’ নামের সেই ভবনটির নকশাও প্রকাশ করেছে। আবাসন কোম্পানি বিঙ্গাতির শীর্ষ নির্বাহী মুহম্মদ বিঙ্গাতি আমিরাতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘বুর্জ বিঙ্গাতি জ্যাকব অ্যান্ড কো রেসিডেন্স’ হবে ১০২ তলাবিশিষ্ট একটি আবাসিক ভবন।

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু আবাসিক ভবনটি যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের রাজধানী নিউইয়র্ক সিটির সবচেয়ে জনবহুল এলাকা ম্যানহাটানের ৫৭ নং সড়কে অবস্থিত। ‘সেন্ট্রাল পার্ক টাওয়ার’ নামের সেই ভবনটি ১০০ তলা বিশিষ্ট, উচ্চতা ১ হাজার ৪১৬ ফুট। সেই হিসেবে বুর্জ বিঙ্গাতি জ্যাকব অ্যান্ড কো রেসিডেন্সের তলার সংখ্যা ও উচ্চতা— দুটোই সেন্ট্রাল পার্ক টাওয়ারের চেয়ে বেশি।

মূলত বৈশ্বিক ধনকুবের বা ব্যাপক ধনী ব্যক্তিদেরই এই ভবনটির বিভিন্ন তলার ক্রেতা হিসেবে বিবেচনা করছে বিঙ্গাতি এবং জ্যাকব অ্যান্ড কো.। যারা বুর্জ বিঙ্গাতি জ্যাকব অ্যান্ড কো. রেসিডেন্সে অ্যাপার্টমেন্ট কিনবেন তাদের জন্য ব্যক্তিগত দেহরক্ষী, পাচক, গাড়িচালকসহ বিভিন্ন পরিষেবার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

এছাড়া অ্যাপার্টমেন্ট মালিকদের জন্য ভবনের ভেতর ‘এক্সক্লুসিভ প্রাইভেট ক্লাবে’র ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। সেই ক্লাবে থাকবে একটি বিশাল সুইমিং পুল এবং লাউঞ্জ।

দুবাইয়ের কেন্দ্রস্থলে নির্মিতব্য এই ভবনটির পাঁটি পৃথক ইউনিট থাকবে। প্রতিটি ইউনিটের পেন্টহাউস (সবচেয়ে উপরের তলা) ফ্ল্যাটগুলো হবে সবচেয়ে চাকচিক্যপূর্ণ। এছাড়া ভবনটি শীর্ষদেশের ডিজাইন করা হবে হীরার আকৃতিতে।

আমিরাতের সংবাদমাধ্যমগুলোকে মুহম্মদ বিঙ্গাতি বলেন, ‘আমরা আসলে একটি শহরের আদলে এই ভবনটি তৈরি করতে চাইছি। অর্থাৎ নামে আবাসিক ভবন হলেও এটি হবে আসলে ১০২ তলা বিশিষ্ট একটি শহর। এই ভবনে যারা থাকবেন, বাজার বা এ জাতীয় দৈনন্দিন প্রয়োজনে তাদের ভবনের বাইরে বের হওয়ার প্রয়োজন হবে না।’

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা