• বুধবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৬ ১৪২৮

  • || ১৩ সফর ১৪৪৩

ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত আফগানদের নিতে হবে: বাইডেন

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২৬ জুন ২০২১  

মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পরও যুদ্ধ বিধ্বস্ত আফগানিস্তানকে সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। শুক্রবার হোয়াইট হাউজে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির সঙ্গে বৈঠকে এমন প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

আফগানিস্তান থেকে দুই দশকের লড়াই শেষে যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী নিজেদের প্রত্যাহার অব্যাহত রাখার মাঝেই হোয়াইট হাউসের ওভাল অফিসে বৈঠকে প্রথমবার মিলিত হন এই দু’দেশের প্রেসিডেন্ট।

বৈঠকে জো বাইডেন জোর দিয়ে বলেন, ওয়াশিংটনের সহযোগিতা এখানেই শেষ হচ্ছে না। যুক্তরাষ্ট্র বাইরে থেকে আফগানিস্তানের সেনাবাহিনীকে সহায়তা প্রদান করে যাবে এবং পাশাপাশি অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সহায়তাও অব্যাহত রাখবে। তবে ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত আফগানদের নিজেদের নিতে হবে।

এ সময় আফগানিস্তানকে রক্ষা করতে গত দুই দশক ধরে যুক্তরাষ্ট্র যে রক্ত ও সম্পদ দিয়েছে, তার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন প্রেসিডেন্ট গনি।

বর্তমানে আফগান সরকার সশস্ত্র গোষ্ঠী তালেবানের বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধের মুখোমুখি। এ পরিস্থিতিকে গনি ১৮৬১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকনের সময়কালের সঙ্গে তুলনা করেন। ওই সময় যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর ও বিদ্রোহী দক্ষিণের রাজ্যগুলোর মধ্যে যুদ্ধের শুরু হয়।

আশরাফ গনি বলেন, এটি মূল্যবোধের বিষয়, একটি ব্যতিক্রমী ব্যবস্থা বা অন্তর্ভুক্তিমূলক ব্যবস্থার মূল্যবোধ। আমরা ঐক্য, সংহতি ও ত্যাগের বোধের প্রতি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ এবং আমরা কিছুতেই ছাড় দেব না।

আরো বলেন, শুক্রবার সরকারি বাহিনী দক্ষিণ ও উত্তরে ছয়টি জেলা তালিবানদের কাছ থেকে পুনরুদ্ধার করেছে।

দিনের শুরুতে প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিনের সঙ্গে পেন্টাগনে বৈঠক করেন গনি। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা বিশ্লেষণ বলছে, সেনা প্রত্যাহারের ছয় মাসের মধ্যেই তার সরকারের পতন হতে পারে- ওই সময় সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে গনি হেসে বলেন, এ জাতীয় অনেক ভবিষ্যদ্বাণী ছিল এবং সেগুলো মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।

এপ্রিলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ঘোষণা দেন, ২০ বছরের সামরিক সংশ্লিষ্টতার পর আমেরিকান সেনারা ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যেই আফগানিস্তান ত্যাগ করবে। এরপর একই ঘোষণা দেয় ন্যাটো বাহিনী।

ঘোষণা অনুযায়ী, ১ মে যুক্তরাষ্ট্র সৈন্য প্রত্যাহার শুরু করে। সে দিন থেকে একাধিক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে আফগানিস্তানে, নিহত ও আহত হয়েছে অসংখ্য বেসামরিক মানুষ। এ সব কারণে আশঙ্কা করা হচ্ছে, কয়েক মাসের মধ্যে আফগান সরকার ও তার সেনাবাহিনী বেহাল পরিস্থিতির মুখোমুখি হবে।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা