• শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২১ ১৪২৯

  • || ১১ রজব ১৪৪৪

কৃত্রিম পুকুরে মাছ চাষে স্বাবলম্বী মিলন, বছরে আয় ৮ লাখ টাকা!

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১২ আগস্ট ২০২২  

নাটোরের বড়াইগ্রাম থানার বনপাড়া বাইপাস এলাকায় মাহমুদুন্নবী মিলন কৃত্রিম পুকুরে বাণিজ্যিকভাবে মাছ চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। সমতলভূমিতে বালির বস্তা আর ত্রিপল ব্যবহার করে কৃত্রিমভাবে পুকুর তৈরী করে বাণিজ্যকভাবে মাছ চাষ করছেন তিনি। তার এই সফলতা দেখে এলাকার অনেকেই কৃত্রিম পুকুরে মাছ চাষ করার আগ্রহ হচ্ছেন।

জানা যায়, বাড়ির পাশে কয়েক শতক জমি নিয়ে মাছ চাষ শুরু করলেও বর্তমানে তার ১ বিঘা জমি লীজ ৮ থেকে ১০টি পুকুর রয়েছে। যেসব পুকুরে ৪ জাতের মাছ চাষ করেন তিনি। এখন প্রতিবছর ৭ থেকে ৮ লাখ টাকা আয় করছেন তিনি।

মৎস্যচাষী মাহমুদুন্নবী মিলন বলেন, বছর পাঁচেক আগে কলেজের বিজ্ঞান মেলায় নতুনত্ব কিছু করবে এমন পন্থা অবলম্বন করে বায়োফ্লক পদ্ধেতিতে মাছ চাষের বিষয়টি প্রদর্শন করি। এরপর থেকে কলেজের সেই ব্যবহৃত বায়োফ্লক বাড়ীতে এনে মাছ চাষ শুরু করি। সেখান থেকে মুলত মাছ চাষ করার নেশা পেয়ে বসে। এরপর বাড়ির পাশে কয়েক শতক জমি নিয়ে মাছ চাষ শুরু করি।

তিনি আরও বলেন, প্রথম বছরই লোকসানের মুখে পড়ি। তার পরের বছর আশার আলো দেখি। দিন দিন সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে লাভবান হতে থাকি। ধীরে ধীরে পুকুরের সাথে মাছের সংখ্যা বৃদ্ধি করি। বর্তমানে আমি মাছ চাষ করে সফল।

মাছচাষ নিয়ে ভবিষ্যৎ কর্মপরিকল্পনা নিয়ে জানতে চাইলে মাহমুদুন্নবী মিলন বলেন, আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা মাছ চাষের খামারকে আরও সম্প্রসারণ করা। শুধু সরকারি চাকরি আর বিদেশগামী না হয়ে দেশের প্রতিটি এলাকার যুবকদের প্রত্যেকের নিজ এলাকায় আত্মকর্মসংস্থান তৈরি করা উচিত। অনেকেই মাছ চাষের পরামর্শ নেওয়ার জন্য আমার কাছে এলে আমি তাদের সঠিক মাছ চাষের পরামর্শ দিয়ে দেই।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা