• শুক্রবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৮

  • || ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

টিউশনির ৫০০ টাকায় চবি ছাত্রীর উদ্যোগ ছাড়িয়েছে লাখ টাকা

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ৫ আগস্ট ২০২১  

টিউশনির ৫০০ টাকা নিয়েই অনলাইনে ব্যবসা শুরু করেন জেরী। পুরোনাম জান্নাতুল নাঈম জেরী। তার অনলাইনে এই ব্যবসায়িক প্ল্যাটফর্মের নাম ‘ব-দ্বীপ’। বিক্রি হয়েছে লাখ টাকারও বেশি পণ্য। তাকে নিয়ে আরো বিস্তারিত।  

জেরী সম্পর্কে:

পৈতৃক বাড়ি রাজশাহী হলেও বাবার চাকরির সুবাদে বেড়ে উঠা চট্টগ্রাম শহরেই। তবে সরকারি চাকরি থাকার কারণে বাবার বদলাতে হয়েছে কর্মসংস্থান। এরইসঙ্গে বদল হয়েছে জেরীর পাঠশালাও। প্রাথমিকের স্কুল মংলা ফাতেমা চাইল্ড একাডেমি। এরপর একাধিক স্কুল বদলের পর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করেছেন চট্টগ্রাম নৌবাহিনী স্কুল অ্যান্ড কলেজে। সবশেষে উচ্চশিক্ষার ঠিকানা নির্ধারণ হয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাণিবিদ্যা বিভাগ থেকে স্নাতক ও  স্নাতকোত্তর শেষে এখন এমফিল এ অধ্যয়নরত। 

‘ব-দ্বীপ’

২০১৮ সাল। অনলাইনে একটি উদ্যোগ নিলেন। নাম দিলেন ‘ব-দ্বীপ’। যেখানে পাওয়া যাবে নিজের তৈরি কিছু জিনিস ছাড়াও দেশীয় পণ্য। শুরুর গল্পটা জেরী নিজেই বললেন, সব সময় নিজের হাত খরচ নিজেই বহন করার চেষ্টা করেছি। অনার্স প্রথম বর্ষ থেকেই টিউশন শুরু করি। পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিংয়ের পেছনে ছুটেছি তিন বছর। কিন্তু একাডেমিক ও রিসার্চের প্রতি বেশি ঝোঁক থাকায় ফ্রিল্যান্সিং ছেড়ে দিলাম। 

তখন ফেসবুক গ্রুপের খুব প্রচলন ছিলো। তখনই একটা ফেসবুক পেজের হয়ে কাজ শুরু করি। কাজ করতে করতেই একদিন মাথায় এলো ক্র‍্যাফটিং পারি, আমার উদ্যোগ এ ক্র‍্যাফটিং রাখা যাবে। 

এছাড়াও সে সময় মার্কেটে গিয়ে খুব বিরক্ত লাগতো। এক জিনিস খুঁজতে অনেক সময় চলে যেত। অনেক ঝামেলা ছিলো পরিবহন। এরই মাঝে অনলাইনে লোক ঠকানোর বিষয়তো অহরহ ছিলোই। সব মিলিয়ে সিদ্ধান্ত নিলাম এমন একটি উদ্যোগ শুরু করবো যেখানে সাধ্যের মধ্যে মানুষ ভালো জিনিস পাবে। একইসঙ্গে দেশীয় পণ্যের প্রচার ও প্রসার থাকবে। যেন চীনের মতো একদিন বাংলাদেশি পণ্য পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। 

ব-দ্বীপে প্রথমে ক্র‍্যাফটিং অর্নামেন্টস, গিফট আইটেম দিয়ে শুরু করেন জেরী। এখন দেশীয় কাপড়ও আছে। হ্যান্ড পেইন্টিংয়ের মাধ্যমে কাস্টমাইজ ও করছেন। আগে শুধু মেয়েদের অর্নামেন্টস আর ড্রেস থাকলেও এখন ছেলেদের পাঞ্জাবী, টি শার্ট যুক্ত হয়েছে। গত বছর থেকে শীতের হ্যান্ডপেইন্টেড শাল এবং দেশীয় অন্যান্য শাল বিক্রি হচ্ছে। 

জেরী জানালেন, স্বপ্ন হলো একজন সায়েন্টিস্ট হওয়া। সব সময় রিসার্চার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ার ইচ্ছে। এখনো সেই ফোকাসেই কাজ করছি। তবে যেহেতু অনলাইন উদ্যোগে একটা প্ল্যাটফর্ম মোটামুটি দাঁড়িয়ে গেছে। এখন এটা আস্তে আস্তে বড় হোক সেটা চাই সেজন্য চেষ্টা করছি। যদি কখনো এখান থেকে অন্তত একজনেরও কর্মসংস্থান হয় তাহলে নিজেকে স্বার্থক মনে করবো। দিন শেষে নিজের ভালো লাগার একটা বিষয় থাকে না?

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা