• শনিবার   ২১ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

রেকর্ড ভাঙছে কৃষিপণ্য রপ্তানি, ১০ মাসে আয় ৯ হাজার কোটি

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১০ মে ২০২২  

গত অর্থবছরে (২০২০-২১) এক বিলিয়ন বা ১০০ কোটি ডলার রপ্তানি আয়ের মাইলফলক ছুঁয়েছিল কৃষিপণ্য। সে সময় বাংলাদেশ থেকে ১০২ কোটি ৮১ লাখ ডলারের কৃষিপণ্য রপ্তানি হয়। এবার দশ মাসেই সেই মাইলফলক ছাড়িয়ে গেছে। অর্থবছরের প্রথম দশ মাসে (জুলাই ২০২১ থেকে এপ্রিল ২০২২) কৃষিপণ্য রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে ১০৪ কোটি ১৪ লাখ ডলার। টাকার হিসাবে যা দাঁড়ায় ৯ হাজার কোটির বেশি।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য বলছে, এ রপ্তানি আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ২৬ দশমিক ২৯ শতাংশ বেশি। গত অর্থবছরের একই সময়ে এসব পণ্য রপ্তানি থেকে আয় হয়েছিল ৮২ কোটি ৪৫ লাখ ডলার। আর এ দশ মাসের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯১ কোটি ৭০ লাখ ডলার।

ইপিবি বলছে, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে কৃষিপণ্য থেকে রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে ১১০ কোটি ৯২ লাখ ডলার। এ ধারা অব্যাহত থাকলে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে আবারো নতুন রেকর্ড গড়বে কৃষিপণ্য রপ্তানি।

ইপিবির তথ্য বলছে, প্রতি বছরের মতো এবারও কৃষিপণ্যের মধ্যে প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্যের রপ্তানি আয়ের হিস্যাই বেশি। এ বছর দশ মাসে ২১ কোটি ৫৯ লাখ ডলারের খাবার গেছে বিদেশে। যদিও গত বছর একই সময়ে এসব পণ্যে রপ্তানি ছিল ২৪ কোটি ৪৩ লাখ ডলারের। তবে চলতি বছরের রপ্তানি গত বছরের থেকে কম হলেও অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশি। গত বছর করোনার কারণে শুকনা খাবারের চাহিদা তুঙ্গে ছিল।

এ বিষয়ে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের পরিচালক (বিপণন) কামরুজ্জামান কামাল বলেন, সার্বিকভাবে কৃষিপণ্য রপ্তানি অনেক বহুমুখী হয়েছে। আগে যেখানে ডিংকস এবং জুসের মতো মাত্র কয়েক ধরনের পণ্য যেত সেখানে এখন প্রক্রিয়াজাত কৃষিপণ্য হিসেবে ব্রেড-বিস্কুটসহ অন্যান্য কনফেকশনারির বড় বাজার ধরেছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি আরও প্রচুর নতুন নতুন খাদ্যপণ্যের চাহিদা পূরণের চেষ্টা করছে। সেগুলোর বাজারও ভালো।

তবে করোনা পরবর্তী সময়ে কয়েকটি সমস্যায় না পড়লে এসব প্রক্রিয়াজাত খাদ্যপণ্যের রপ্তানি আরও বাড়তো জানিয়ে কামরুজ্জামান কামাল বলেন, করোনা কেটে যাওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত চাহিদা থাকলেও আমাদের পণ্য জাহাজীকরণের বড় সমস্যা হয়েছে। কন্টেইনার সংকটের কারণে ঠিক সময় পণ্য দেওয়া সম্ভব হয়নি। ভাড়াও অনেক বেশি ছিল।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা