• সোমবার   ১৫ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৯

  • || ১৬ মুহররম ১৪৪৪

পূর্বাচলে হবে ডিপ্লোমেটিক জোন

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২৭ জুন ২০২২  

‘গুলশান ও বারিধারা এলাকায় কূটনৈতিক মিশনের জন্য বরাদ্দ দেয়ার মতো জায়গা খালি নেই। তাই রাজউক পূর্বাচলে ডিপ্লোমেটিক জোন তৈরির পরিকল্পনা করেছে। বিদেশি মিশনগুলো সম্মত হলে প্রক্রিয়াটি দ্রুত শুরু করা যাবে।’

রাজধানী ঢাকার সম্প্রসারিত অংশ পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পে ডিপ্লোমেটিক জোন গড়ে তোলা হবে বলে জাতীয় সংসদকে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি জানান, পূর্বাচলের ২৭ নম্বর সেক্টরে ডিপ্লোমেটিক জোন করার জন্য প্লট নির্ধারিত রয়েছে।

রোববার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে সরকারি দলের সদস্য মোজাফফর হোসেনের প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ তথ্য জানান। আব্দুল মোমেন বলেন, ‘অনেক দেশই অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশে মিশন খোলার ব্যাপারে আগ্র্রহ দেখিয়েছে। তাছাড়া যেসব দেশ বাড়ি ভাড়া নিয়ে তাদের অফিস পরিচালনা করছে তাদের পক্ষ থেকেও এক সময় অফিস ভবন নির্মাণের জন্য জমির দাবি উঠতে পারে।

‘বর্তমানে গুলশান ও বারিধারা এলাকায় কূটনৈতিক মিশনের জন্য বরাদ্দ দেয়ার মতো জায়গা খালি নেই। তাই রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) শহর সম্প্রসারণ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে পূর্বাচল ডিপ্লোমেটিক জোন তৈরির পরিকল্পনা করেছে। বিদেশি মিশনগুলো সম্মত হলে প্রক্রিয়াটি দ্রুতগতিতে শুরু করা যাবে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিবছরই বিভিন্ন দেশ থেকে বাংলাদেশে নতুন নতুন কূটনৈতিক মিশন খোলার বিষয়ে আগ্রহ দেখা যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোও বাংলাদেশে সক্রিয়ভাবে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করছে। এসব আন্তর্জাতিক সংস্থা ও মিশনগুলোর নিজস্ব অফিস ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর একটি অগ্রাধিকারমূলক যৌক্তিক নির্দেশ রয়েছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘সারা বিশ্বে জমির দাম ও ভাড়া করা অফিসের মূল্য উত্তরোত্তর বাড়ছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিভিন্ন রাষ্ট্রে তার মিশনগুলোর জন্য প্রযোজ্য ক্ষেত্রে জমি কেনার সিদ্ধান্ত বিষয়ে কাজ করা যাচ্ছে।

‘দূতাবাস ভবনের জন্য ভূমি বিনিময় এখন একটি যৌক্তিক রাষ্ট্রাচারে পরিণত হয়েছে। এক্ষেত্রে আমরা বেশ কয়েকটি দেশের সঙ্গে ভূমি বিনিময় কার্যক্রম সম্পন্ন করেছি। এই মুহূর্তেও কিছু কার্যক্রম চলমান।

‘বাংলাদেশের নিজস্ব দূতাবাসের ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে যেসব দেশ জমি বরাদ্দ দিয়েছে অথবা দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে সেগুলো হচ্ছে- ভারত, পাকিস্তান, ভুটান, থাইল্যান্ড, ইরাক, মিসর, জাপান ইত্যাদি। তারই ধারাবাহিকতায় ভিয়েনা কনভেনশন-১৯৬১ অনুযায়ী বিদেশি মিশনগুলোকে তাদের নিজস্ব ভবন তৈরির ক্ষেত্রে নতুন করে জমি বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন।’

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা