• শুক্রবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৮

  • || ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

২০২১ সালে সাড়ে ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন: অর্থমন্ত্রী

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২০ অক্টোবর ২০২১  

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জাপান সফরে দেশটি ও বাংলাদেশের মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতর এক বিরাট অগ্রগতির সূচনা হবে বলে আশা করা হয়। এতে উভয় দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক সম্পর্ক আরও জোরদার হবে। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, বঙ্গবন্ধুর জাপান সফর জাপান-বাংলাদেশ সম্পর্কে এক সুদূরপ্রসারী প্রভাব বিস্তার করবে। ১৯৭৩ সালের এই মাসে বঙ্গবন্ধু সাত দিনের সফরে জাপানে গিয়েছিলেন।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী তানাকার সঙ্গে বঙ্গবন্ধু আলোচনার পরপরই অধিক হারে জাপানি অর্থনৈতিক সাহায্যের প্রতিশ্রুতি এবং জাপান সরকার ও বাণিজ্য সংস্থার আগ্রহ থেকে যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ গঠনে সাহায্য প্রদানের বিষয়টি জাপানের আন্তরিক সদিচ্ছার মধ্য দিয়ে প্রতিফলিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার সম্মানে জাপানি শিল্প ও বণিক সহায়তা ও বৈদেশিক বাণিজ্য সংস্থা আয়োজিত সভায় যোগদান ছাড়াও জাপানের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও শিল্পপতিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন, পরিকল্পনা কমিশনের ডেপুটি কমিশনার নুরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক সচিব তোফায়েল আহমেদসহ আরও অনেকে তাঁর সঙ্গে ছিলেন।

এদিন বঙ্গবন্ধু সঙ্গীদের নিয়ে দেশটির প্রধান ইলেকট্রনিক কারখানা পরিদর্শন করেন। সফরের তৃতীয় দিনে কর্মব্যস্ত দিন কাটান তিনি। বঙ্গবন্ধুর এদিন জাপানের গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রদর্শন করেন।

সফরকালে বঙ্গবন্ধুর সফরযাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন। তিনি বিভিন্ন জিনিস আগ্রহ ভরে দেখেন। বাংলাদেশের যমুনা নদীর ওপর প্রস্তাবিত সেতু নির্মাণে জাপানের সাহায্য প্রদানের পরিকল্পনা রয়েছে বলেও এদিন আবারও জানানো হয়।

 

লোক-বিনিময় ত্বরান্বিত করার উদ্যোগ

আটক বাঙালি ও পাকিস্তানি নাগরিক বিনিময় কর্মসূচির কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছিল। উদ্বাস্তু সংক্রান্ত জাতিসংঘ কমিশন সেটাকে আরও দ্রুত এগিয়ে নেওয়ার উদ্যোগের কথা জানান। মানবজাতির ইতিহাসে উড়োজাহাজে করে বিশ্বের বৃহত্তম মানব-বিনিময় কর্মসূচির কাজ নির্ধারিত ছয় মাসের মধ্যে শেষ হতে যাচ্ছে।

উদ্বাস্তু সংক্রান্ত জাতিসংঘ হাইকমিশন থেকে জানানো হয়, এক মাসে ১৬ হাজার ৩৯৪ জন বাঙালি এবং ৭ হাজার ৭৭২ পাকিস্তানের নাগরিক স্বদেশে ফিরে গেছেন। জাতিসংঘ হাইকমিশন প্রধান এদিন এনার সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, গত একমাসের অভিজ্ঞতা সামনে রেখেই উদ্বাস্তু সংক্রান্ত জাতিসংঘ হাইকমিশনে এক কোটি ৪০ লাখ ডলারের বিনিময় কর্মসূচি ত্বরান্বিত করতে নতুন করে এক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। লোক বিনিময় কর্মসূচি তদন্ত করার কাজে সাহায্য করার উদ্দেশ্যে ব্রিটিশ সরকার বিরাট আকারের উড়োজাহাজ নিয়োজিত করবে বলে আশা করা হয়।

তিনি বলেন, বড় ধরনের পরিবর্তনে বিমান পরিবহন হতে পারে বলে আশা করা যাচ্ছে। এর আগে জার্মানি একটি উড়োজাহাজ দেওয়ার ঘোষণা দেয়। আশা করা হয়, ঢাকাস্থ পূর্ব জার্মানির রাষ্ট্রদূত একটি উড়োজাহাজ পাঠাতে তার সরকারকে অনুরোধ করেছে।

 

মস্কোয় কিসিঞ্জার

কিসিঞ্জারের এদিন মস্কো পৌঁছানোর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি স্থাপনের প্রচেষ্টায় সোভিয়েত-মার্কিন আলোচনা শুরু হবে বলে কূটনৈতিক সূত্রে বলা হয়। ওয়াশিংটন থেকে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, কিসিঞ্জারের এই সফরের পরিপ্রেক্ষিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সোভিয়েত ইউনিয়নের সঙ্গে ব্যাপক আলোচনা চালানোর প্রত্যাশা করছে। এদিকে গোলান মালভূমি অঞ্চলে প্রচণ্ড লড়াই চলছিল বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে বলা হয়। সিরিয়া এই যুদ্ধকে নিষ্ঠুর যুদ্ধ বলে বর্ণনা করেছে। তারা দাবি করেছে, যুদ্ধে ইসরায়েলের সামর্থ্য ও অস্ত্রাদিসহ বহু সাঁজোয়া গাড়ি ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। ইসরায়েলের একটি ট্যাংক-বিধ্বংসী ঘাঁটিও ধ্বংস করা হয় বলে প্রতিবেদনে দাবি করা হয়।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা