• সোমবার   ১৫ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৯

  • || ১৬ মুহররম ১৪৪৪

পাটের বাম্পার ফলনে খুশি কুমিল্লার চাষিরা!

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১৪ জুলাই ২০২২  

পাট একটি বর্ষাকালীন ফসল। বাংলাদেশে পাটকে সোনালী আঁশ বলা হয়। পাট বাংলার ও পশ্চিম বঙ্গের শত বছরের ঐতিহ্য। পাট বৃষ্টি নির্ভর ফসল। পাট পরিবেশ বান্ধব, বহুমুখী ব্যবহারযোগ্য আঁশ । শিল্প বিপ্লবের সময় ফ্লাক্স এবং হেম্প এর স্থান দখল করে পাটের যাত্রা শুরু। বস্তা তৈরির ক্ষেত্রে পাট এখনও গুরুত্বপূর্ণ।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার কুমিল্লায় সোনালী আঁশ পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। পূর্ব লক্ষ্যমাত্রা থেকে এবার ৫শত হেক্টর বেশি জমিতে পাট চাষ হয়েছে। এবছর ভালো বৃষ্টিপাত ও সারের সঙ্কট না থাকায় বাম্পার ফলন হয়েছে বলে কৃষকরা মনে করেন।

কৃষক মোতালেব জানান, তিনি এবছর ২ বিঘা জমিতে পাট চাষ করেন। প্রতি বিঘাতে প্রায় ৮ হাজার টাকার মতো খরচ হয়েছে। গতবারের তুলনায় এবার বাম্পার ফলন হয়েছে। এখন পাটের আঁশ ছাড়াতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

আরেক চাষি মোঃ আলী বলেন, আগে অনেকেই পাট চাষ করতো। মাঝে আবহাওয়া অনুকূলে পরিবেশ ও পাটের সঠিক দাম না থাকায় অনেকেই চাষ করতে চাইতো না। এখনো পাট চাষের আগ্রহ আছে। পাটের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত হলে পাট চাষির সংখ্যা আরো বাড়বে।

বড়ইকৃষ্ণপুর গ্রামের কৃষকরা জানায়, এবার বর্ষার পানি আসায় পাটের ফলন বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন ন্যায্য মূল্য পেলেই আমরা খুশি। জেলা কৃষি অফিস থেকে জানা যায়, এবছর জেলার প্রায় ১০ হাজার হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে। এতে দেশি ও তোষা জাতের পাট রয়েছে। পাটের মূল্য নাগালেই থাকায় ধীরে ধীরে বাড়ছে পাটের চাষ।

কুমিল্লার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবং কৃষি বিভাগের সহযোগীতায় এবার পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষি বিভাগ চাষিদের সব ধরনের সহযোগীতা করবে বলে তিনি জানান।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা