• বুধবার   ১০ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ২৬ ১৪২৯

  • || ১১ মুহররম ১৪৪৪

‘মেহেরপুরে রাজাবাবুর’ দাম ২৫ লাখ, ‘মনুর’ ২০

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ৩ জুলাই ২০২২  

কোরবানির জন্য মেহেরপুরে বিশাল আকৃতির দুটি ফ্রিজিয়ান জাতের ষাঁড় গরু প্রস্তুত করা হয়েছে। একটির দাম ২৫ লাখ আরেকটির দাম ২০ লাখ টাকা হাঁকা হচ্ছে। এসব গরু দেখতে ভিড়ি করছেন ব্যবসায়ীরা।খোঁজ নিয়ে যায়, মুজিবনগর উপজেলার মোনাখালী গ্রামের সৌখিন খামারি ইনছান আলী আড়াই বছর ধরে পালন করে আসছিলেন ফ্রিজিয়ান জাতের একটি ষাঁড়। আদর করে গরুটির নাম দিয়েছেন ‘মুজিবনগরের রাজাবাবু’। ১০ ফুট লম্বা, ৬ ফুট উচ্চতার রাজাবাবুর ওজন প্রায় ১৯০০ কেজি (সাড়ে ৪৭ মণ)। দর হাঁকা হচ্ছে ২৫ লাখ টাকা।

ইনছান আলী বলেন, ‘চার মাস বয়সী রাজাবাবুকে ৮৫ হাজার টাকায় পাশের গ্রাম বিদ্যাধরপুর থেকে কিনেছিলাম। মমতা ও আদর দিয়ে লালন-পালন করে বড় করেছি তাকে। চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহসহ বিভিন্ন এলাকার গরু ব্যবসায়ীরা আসছেন। দাম-দরও করছেন। এরই মধ্যে গরুর দাম ১৬ লাখ টাকা উঠেছে। ২৫ লাখ হলে বিক্রি করবো।’

ইনছান আলীর স্ত্রী শাহিনা খাতুন বলেন, ‘বিশাল গরুটিকে আমি নিজের সন্তানের মতোই ভালোবাসি। গরমের সময় দিনে তিনবার গোসল করাতে হয়। গোয়াল ঘরটিও দুই বেলা পরিষ্কার করতে হয়। সারাদিনই প্রায় যত্ন করতে হয় তাকে। রাজাবাবুর বিক্রির কথা উঠলেই বুকটা ফেটে যায়।’

অন্যদিকে একই উপজেলার বল্বভপুর গ্রামের সাহাবুদ্দিনের ফ্রিজিয়ান জাতের ষাঁড়টির নাম দেওয়া হয়েছে ‘মনু’। দেড় বছরে ওজন প্রায় ১৫০০ কেজি (সাড়ে ৩৭ মণ)। ২০ লাখ টাকা হলে গরুটি বিক্রি করবেন সাহাবুদ্দিন।

সাহাবুদ্দিন বলেন, ‘পাঁচ মাস বয়সী মনুকে ১ লাখ ৭ হাজার টাকায় শিয়ালমারি হাট থেকে কিনেছিলেন। দেড় বছরে ওজন প্রায় ১৫০০ কেজি। প্রতিদিন ২০ কেজি করে খাবার লাগে মনুর। ২০ লাখ টাকায় বিক্রির আশা করছি।’

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা সাইদুর রহমান বলেন, রাজাবাবুকে দেখতে গিয়েছি। চার দাঁতের রাজাবাবুর আকার ও ওজন পরিমাপ করে দেখা যায় ওজন প্রায় ৪৬ মণ। এটাই দেশসেরা গরু। এছাড়া জেলায় গরু মোটাতাজাকরণ খামার রয়েছে ১৭ হাজার ৯১৩টি। এ বছরে কোরবানি উপযুক্ত পশুর পরিমাণ ১ লাখ ৮৭ হাজার ৭৪১টি। জেলার কোরবানির চাহিদা মিটিয়ে প্রায় এক লাখ পশু বাইরের জেলায় সরবরাহ করা হবে। গেল দুই বছর করোনার ধাক্কা সামলিয়ে এবার নতুন স্বপ্নে গরু পালন করেছেন খামারিরা। কোরবানির পশু বিক্রির জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা