• শনিবার   ৩১ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ১৫ ১৪২৭

  • || ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ব্যায়ামেই সুস্থ থাকবে হার্ট

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০  

দিন দিন হার্টের রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। সেইসঙ্গে হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যু। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, আগামী দশ বছরে আড়াই কোটি মানুষের মৃত্যুর কারণ হবে হার্ট অ্যাটাক। 

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, দিনের পর দিন এই রোগ প্রবল আকার ধারণ করছে। তার কারণ, দুশ্চিন্তা, উত্তেজনা, উশৃঙ্খল জীবনযাপন, ইত্যাদি। একটি সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রতিবছর বিশ্বে প্রায় ১৭ দশমিক৯ মিলিয়ন মানুষ এবং ভারতবর্ষে প্রায় এক দশমিক সাত মিলিয়ন মানুষ হার্টের অসুখে মারা যান। তাই হৃদরোগকে বিশ্বের এক নম্বর ঘাতকব্যাধি হিসেবে চিহ্নিত করছেন বিশেষজ্ঞরা।

হার্ট-এর গুরুত্ব এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগ সম্পর্কে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রতিবছর ২৯ সেপ্টেম্বর সারা বিশ্বজুড়ে পালিত হয় 'বিশ্ব হার্ট দিবস'। তবে হার্ট ভালো রাখতে আপনাকে সঠিক খ্যাদ্যাভাস এবং সেই সঙ্গে ব্যায়াম করতে হবে। হার্ট ভালো রাখার কিছু ব্যায়াম রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে এই ব্যায়ামগুলো নিয়মিত করলে দূরে রাখতে পারবেন প্রাণঘাতি হার্টের নানা অসুখ।

চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, নিজেদের সুস্থ ও ফিট রাখতে হার্টের বিশেষ যত্ন নেওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন। তাই, আজ আমরা এমন কিছু ব্যায়ামের কথা উল্লেখ করব যা আপনার হার্টকে সুস্থ ও সবল রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তবে চলুন জেনে নিন কোন ব্যায়ামগুলো করবেন-

যোগাসন

 

যোগাসন

যোগাসন


হার্টকে সুস্থ রাখার ক্ষেত্রে যোগাসনের বিকল্প দ্বিতীয় কিছু হয় না বললেই চলে। যোগাসন রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণ করার মাধ্যমে হার্টকে সুস্থ রাখতে এবং কার্ডিওভাসকুলার সিস্টেমকে উন্নত করতে সহায়তা করে। তাই প্রতিদিন সকালে আমাদের প্রত্যেকেরই যোগাসন করা অত্যন্ত প্রয়োজন। যেমন - ভীরাভদ্রাসন (দ্য ওয়ারিয়র পোজ), সেতুবন্ধ সর্বাঙ্গাসন, ত্রিকোণাসন, শবাসন, সূর্য নমস্কার, ভুজঙ্গাসন, পশ্চিমোত্তানাসন, ইত্যাদি হার্টের জন্য খুবই উপকারী যোগাসন। 

 

আইসোমেট্রিক ব্যায়াম

 

আইসোমেট্রিক ব্যায়াম 

আইসোমেট্রিক ব্যায়াম 

যে ব্যায়ামগুলো করার সময় শরীরের সমস্ত পেশীকে ব্যবহার করা হয়। তাকে সাধারণ অর্থে আইসোমেট্রিক ব্যায়াম বলে। একে আবার অ্যারোবিক এক্সারসাইজও বলে। যেমন - হাঁটাচলা, দৌড়ানো, সাঁতার কাটা ও সাইকেল চালানো। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন এই ধরনের ব্যায়ামগুলো হার্টকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া হার্ট অ্যাটাকের সঙ্গে জড়িত ঝুঁকিগুলো, যেমন - রক্তচাপ, কোলেস্টেরল এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতেও সহায়তা করে। তাই রোজ সকাল ও সন্ধ্যায় এই ব্যায়ামগুলো অবশ্যই করুন। 

 

ওয়েট ট্রেনিং

 

ওয়েট ট্রেনিং

ওয়েট ট্রেনিং

বিশেষজ্ঞদের মতে, হার্টের স্বাস্থ্যকে ঠিক রাখতে ওয়েট ট্রেনিং এক্সারসাইজ খুবই সহায়ক। যেমন পুশ-আপস, স্কোয়াটস ও পুল-আপস, ইত্যাদি। এগুলো পেশীকে শক্তপোক্ত করে এবং হার্ট সচল রাখতে সাহায্য করে। তাই রোজ এই ধরনের এক্সারসাইজ করুন।

 

স্ট্রেচিং 

স্ট্রেচিং

স্ট্রেচিং


হার্টকে সুস্থ রাখতে প্রতিদিন এক্সারসাইজের সময় স্ট্রেচিং করুন। এটি হার্টকে সুস্থ রাখার কার্যকর একটি ব্যায়াম। স্ট্রেচিং-এর মধ্যে হ্যামস্ট্রং স্ট্রেচ, কোয়াড্রিসেপস স্ট্রেচ, নি-পুল ও গ্রোইন স্ট্রেচ আমাদের হার্টকে সুস্থ রাখার ক্ষেত্রে অত্যন্ত সহায়ক। 

 

ডিপ ব্রীদিং এক্সারসাইজ

 

ডিপ ব্রীদিং এক্সারসাইজ

ডিপ ব্রীদিং এক্সারসাইজ

হার্টকে সুস্থ রাখতে এক্সারসাইজ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। রোজ সকালে এক ঘণ্টা ধরে এই এক্সারসাইজ করলে হার্টের রোগ থেকে মুক্তি পেতে পারেন। 

 

সতর্কতা
যেকোনো ব্যায়াম করার আগে অবশ্যই একজন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। আপনার শারীরিক অবস্থা বুঝে সঠিক নিয়ম মেনে কীভাবে করা উচিত তা আপনাকে তারাই বলে দেবে। এর পাশাপাশি সুষম আহার গ্রহণ অত্যন্ত প্রয়োজন। এছাড়াও ধূমপান ও মদ্যপান বর্জন করা, উশৃঙ্খল জীবনযাপন করা থেকে বিরত থাকা, বাইরের জাঙ্কফুড ও ফাস্টফুড না খাওয়া এবং খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তন করাও জরুরি। এতেই আপনার শরীরকে এবং হার্টকে সুস্থ রাখতে পারবেন।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা