• বুধবার   ১২ মে ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২৮ ১৪২৮

  • || ২৮ রমজান ১৪৪২

বিষাক্ত সাপের বিষ থেকে বাঁচার নতুন কৌশল

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২২ এপ্রিল ২০২১  

বিষাক্ত সাপের কামড়ে প্রতি বছর বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মারা যায় প্রায় ১ লাখ ৩৮ হাজার মানুষ। সাপে কাটাকে এখন বিশ্বের অন্যতম সবচেয়ে উপেক্ষিত একটি স্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। যে সমস্যা বিশ্বের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যের ওপর ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

ভারতেও সাপের কামড়ে অনেক মানুষ মারা যায়। ভারতে প্রতি বছর সর্পদংশনের শিকার হয় প্রায় ২৮ লাখ মানুষ, আর মারা যায় ৫০ হাজার। সাম্প্রতিক এক জরিপে দেখা গেছে, গত দুই দশকে শুধু ভারতেই সাপের কামড়ে মারা গেছে ১২ লাখের বেশি মানুষ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ২০১৯ সালের অক্টোবরে প্রকাশিত সর্বশেষ এক রিপোর্ট থেকে জানা যায়, বাংলাদেশে বর্ষা মৌসুমে প্রতি বছর অন্তত পাঁচ লাখ ৮০ হাজার মানুষ সাপের দংশনের শিকার হয় এবং মারা যায় অন্তত ছয় হাজার মানুষ।

ভারতের মতো বাংলাদেশেও যেসব সাপ দেখা যায়, তার মধ্যে সবচেয়ে বিষাক্ত চন্দ্রবোড়া। একশো বছর আগে এই প্রজাতির সাপ বাংলাদেশে বিলুপ্ত হয়ে গেছে বলে মনে করা হলেও, গত বছর দশেক ধরে এই সাপের দংশনের ঘটনা শনাক্ত হয়েছে বলে বিবিসিকে জানিয়েছে বাংলাদেশ টক্সিকোলজি সোসাইটি।

 

তবে সহজ একটি পদক্ষেপ সর্পদংশন থেকে মানুষের মৃত্যু ঠেকাতে পারে।   

ফ্রান্সের পাস্তুর ল্যাবরেটরিতে বিজ্ঞানীরা বহুকাল আগে অ্যান্টিভেনম বা বিষ প্রতিকারের ওষুধ তৈরির কিছু কাজ করেছেন। এছাড়াও ইংল্যান্ডের লিস্টার ইনস্টিটিউট এবং ব্রাজিলের বুতানতান ইনস্টিটিউটেও অ্যান্টিভেনম নিয়ে গবেষণা হয়েছে। অনেক অ্যান্টিভেনম ভালো কাজও করে।

তবে সাপের বিষের চরিত্র যেহেতু বেশ জটিল, ফলে এর সফল চিকিৎসাও অনেক সময় কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। সঠিক অ্যান্টিভেনম যোগাড় করা এবং অ্যান্টিভেনম ব্যবহার করে বিষক্রিয়া বন্ধের চিকিৎসা খুবই ব্যয়বহুল হয়ে দাঁড়াতে পারে। ফলে অনেকেই সাপের কামড় থেকে বাঁচার সহজ ও কার্যকর উপায়গুলোর দিকে বেশি মনোযোগ দিচ্ছে।

মোটা রাবারের তৈরি বুট জুতা সর্পদংশন থেকে কিছুটা সুরক্ষার কাজ করে।

ভারতে কর্নাটক রাজ্যের টুকারাম রাও এবং তার প্রতিবেশীরা একটা প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। ভারতে হিউমেন সোসাইটি ইন্টারন্যাশনাল পরিচালিত এক কর্মসূচির আওতায় তারা এলাকার কৃষকদের সাপের দংশন থেকে বাঁচাতে মোটা রাবাবের বুট জুতা সরবরাহ করছেন।

 

মানুষ যখন চলতে গিয়ে অজান্তে সাপের গায়ে পাড়া দেয়, তখনই সাপের ছোবল খায় তারা। নব্বই শতাংশ সর্পদংশনের ঘটনা এভাবেই ঘটে, জানান সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তা সুমন্ত বিন্দুমাধব।

তার সংস্থা থেকে মি. রাও-এর গ্রামের কৃষকদের ৪০০ জোড়ার বেশি রাবারের বুট এবং ২০০ সৌরশক্তি চালিত বাতি বিলি করা হয়েছে।

চন্দ্রবোড়ার ফণা ভারতে অন্যান্য প্রজাতির অনেক সাপের চেয়ে বেশি লম্বা। কিন্তু গামবুটের রাবার ভেদ করে কামড়ানো তাদের পক্ষে খুবই কঠিন। আর সাপে কাটার পরে চিকিৎসার চেয়ে আগেই সাপের কামড় থেকে বাঁচা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ, বলেন মি. বিন্দুমাধব।

সবশেষে বলা চলে, সব কৃষকদের অবশ্যই সাপের বিষ থেকে বাঁচতে নতুন এই কৌশলটি অনুস্মরণ করা জরুরি। তবেই সাপের দংশনে মৃত্যুর হার কমানো সম্ভব হবে। বাঁচবে জীবন।

সূত্র: বিবিসি।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা