• শনিবার   ১৬ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ২ ১৪২৭

  • || ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ফুলছড়িতে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীনরা পাচ্ছেন ৭৫ টি ঘর

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২ জানুয়ারি ২০২১  

গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য নির্মিত হচ্ছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া উপহার স্বপ্ন নীড়। মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৭৫ টি ঘর তৈরি হওয়ায় তালিকাভুক্ত গৃহহীন পরিবারগুলাের মুখে হাসি ফুটেছে। দিনের পর দিন উন্মুখ হয়ে অপেক্ষার প্রহর গুনছে এ পরিবারগুলো।

ফুলছড়ি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানাে হয়, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য চলতি অর্থবছরে ফুলছড়ি উপজেলার ২ টি ইউনিয়নে ৭৫ টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নে ৪৭ টি, ফজলুপুর ইউনিয়নে ২৮ টি  ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। দুই কক্ষবিশিষ্ট সেমি পাকা ঘর নির্মাণে প্রতিটি ঘর বাবদ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। প্রতিটি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য থাকছে আধুনিক সুযােগ-সুবিধা সংবলিত দুই কক্ষবিশিষ্ট ঘর। টয়লেট, কিচেন ও স্টোর রুম। এরই মধ্যে কাজের অগ্রগতি প্রায় শেষের দিকে।

আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে তালিকাভুক্ত গৃহহীনদের মধ্যে ঘর প্রদান করা হবে। নির্মাণাধীন ঘরগুলাে সার্বিকভাবে তদারকি করছেন ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. আবু রায়হান দোলন।

সরেজমিন ফুলছড়ির চরাঞ্চলীয় ইউনিয়ন ফজলুপুরের গুপ্ত মনি গ্রামে গিয়ে দেখা যায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের জন্য নির্মিত ঘরগুলোর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। যে এলাকায় কখনও ইটের ঘর কল্পনা করা যায় না সেখানে শোভা পাচ্ছে সুন্দর ইটের তৈরি ঘর।

ফজলুপুর ইউনিয়নের গুপ্ত মনির  চরের বিধবা সাহেরা বেগম আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, আমার স্বামী মারা যাবার পর বহু কষ্টে সন্তানদের নিয়ে জীবন যাপন করছি। আমি স্বপ্নেও ভাবিনি এই চরে পাকা ঘরে থাকতে পারবো। প্রধানমন্ত্রী আমাকে পাকা ঘর উপহার দিয়েছেন।

বুলু রানী বলেন, হামার (আমার) একটা ভাঙ্গা চোড়া ছাপড়া ঘর আছিলো (ছিল) টিইউনো (ইউএনও) ছাড় হামাক ঘর করি দিছে। হামার কোন টাকা পয়সা লাগে নাই। তাক মুই মোন থেকি দোয়া করোম। উনি কছে এটা নাকি শেখ হাসিনার উপহার।

ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবু রায়হান দোলন বলেন, গরিবের স্বপ্নের ঘর তৈরিতে তারা ব্যস্ত। মানসম্মত ঘর দরিদ্র ও ভূমিহীনদের মাঝে তুলে দেয়াই এখন তাদের মূল লক্ষ্য।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে সরকার কর্তৃক প্রদেয় এই প্রকল্প অত্যন্ত সুন্দরভাবে সম্পন্ন হওয়ার পথে। কিছু অসম্পন্ন কাজ সমাপ্ত হওয়ার পর সরকারি নির্দেশনা মােতাবেক নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সব কাজ সম্পন্ন করে এঘরগুলো ঘরহীন অসহায় পরিবারগুলাের মধ্যে বরাদ্দ দেয়া হবে। এই ঘর বরাদ্দে কোনাে প্রকার তদবির ও অনৈতিক সুযােগ-সুবিধা যেন কেউ নিতে না পারে সেজন্য সঠিক তদারকি করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা