• শনিবার   ১২ জুন ২০২১ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৯ ১৪২৮

  • || ০১ জ্বিলকদ ১৪৪২

‘নগরের নটী’ বিতর্কে পাল্টা আক্রমণ তনুশ্রীর

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ৬ মে ২০২১  

পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির অধিকাংশ তারকা প্রার্থী হেরে যাওয়ার পর টুইটারে শ্রাবন্তী, পায়েল ও তনুশ্রী চক্রবর্তীদের ‘নগরের নটী’ বলে কটাক্ষ করেন দলটির প্রবীণ নেতা তথাগত রায়। এই অভিনেত্রীদের কীভাবে বিজেপির টিকিট দেয়া হলো সেই প্রশ্নও তোলেন তথাগত। তিনি আরও অভিযোগ করেন, নির্বাচনের টাকা দিয়ে এসব প্রার্থীরা মাস্তি করে বেড়িয়েছেন।

তথাগত রায়ের সেই ‘নগরের নটী’ টুইটের বিরুদ্ধে মুখ খুললেন অভিনেত্রী তনুশ্রী চক্রবর্তী। যিনি এবারের বিধানসভা নির্বাচনে হাওড়ার শ্যামপুর কেন্দ্র থেকে বিজেপির প্রার্থী হয়ে লড়েছেন। কিন্তু বড় ব্যবধানে হেরে গেছেন তৃণমূল প্রার্থী কালীপদ মণ্ডলের কাছে। তিনি বুধবার পর পর দুটি টুইটে নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহ, কৈলাস বিজয়বর্গীয়, দিলীপ ঘোষের সঙ্গে বৈঠক করার পাল্টা হুমকি দেন।

টুইটে তনুশ্রী লিখেছেন, ‘সুষমাজি (সুষমা সরাজ), স্মৃতিজিও (স্মৃতি ইরানি) তো এই দলেই ছিলেন বা আছেন। তারা অনেক কাজ করেছেন। তাদেরকেও কি এভাবেই কটাক্ষ শুনতে হয়েছে?’ অথচ আমাদের এই ধরনের কথা শুনতে হচ্ছে।’ অভিনেত্রীর অভিযোগ, এমন উক্তির মধ্যে দিয়ে বিজেপির প্রবীণ নেতা তথাগত রায় দেশের সমস্ত নারীকে অপমান করলেন। অথচ, দল কিন্তু নারীশক্তিকে আলাদা সম্মান দেয়।’

তনুশ্রী আরও লেখেন, ‘পরাজিত হলেও আমরা এখনও বিজেপির সদস্য। সেই দলের এক নেতার থেকে এই ধরনের মন্তব্য সত্যিই আমাদের তিনজনকে শুধুই অপমানিত করেনি, আহতও করেছে। আমি ব্যক্তিগত ভাবে এখনও বিজেপির মতাদর্শকে সম্মান করি। মনে করি, দল নীতিগত দিক থেকে এখনও বিচ্যুত হয়নি।’

এর আগে মঙ্গলবার নগরের ‘নটী বিতর্কে’ মুখ খোলেন বিজেপির আরেক নারী এবং তারকা প্রার্থী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। একই দিনে টুইটারে ক্ষোভ ঝাড়েন আরেক প্রার্থী অভিনেত্রী পায়েল সরকারও। বাকি ছিলেন তনুশ্রী। তিনিও এবার তার মনের ক্ষোভ উগরে দিলেন।

প্রসঙ্গত, বিধানসভা ভোটের কয়েক দিন আগে তৃণমূলের প্রবীণ ও হেবিওয়েট প্রার্থী মদন মিত্রের সঙ্গে বিজেপির তিন তারকা প্রার্থী শ্রাবন্তী, পায়েল এবং তনুশ্রীর নৌকাবিহারের একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। মঙ্গলবার সেই ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে বেশ কয়েকটি টুইট করেন তথাগত রায়।

সে সব টুইটের একটিতে তিনি পায়েল-শ্রাবন্তী-তনুশ্রীদের ‘নগরীর নটী’ বলে বিদ্রুপ করেন। লেখেন, ‘নগরীর নটীরা নির্বাচনের টাকা নিয়ে কেলি করে বেড়িয়েছেন আর মদন মিত্রর সঙ্গে নৌকাবিলাসে গিয়ে সেলফি তুলেছেন। এরপর হেরে ভূত হয়েছেন। তাদেরকে টিকিট দিয়েছিল কে?’

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা