• বুধবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ৭ ১৪২৭

  • || ০৫ সফর ১৪৪২

১৪০

চতুর্থ শিল্প বিপ্লব উপযোগী ৫০টি পাইলট প্রকল্প উদ্বোধন

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ২৫ আগস্ট ২০২০  

চতুর্থ শিল্প-বিপ্লব উপযোগী প্রযুক্তি-নির্ভর দক্ষ জনবল তৈরির লক্ষ্যে গতকাল সোমবার চতুর্থ শিল্প বিপ্লব উপযোগী ৫০টি পাইলট প্রকল্প উদ্বোধন করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম। একই সঙ্গে অকুপেশন-ভিত্তিক রেডিনেস এনালাইসিস ও কম্পিট্যান্সি স্ট্যান্ডার্ড এবং কারিকুলাম তৈরি বিষয়ক এক অনলাইন কর্মশালারও উদ্বোধন করা হয়। 

উক্ত অনলাইন কর্মশালাটি টেমাসেক ফাউন্ডেশন ও সিঙ্গাপুর পলিটেকনিক ইন্টারন্যাশনাল-এর সহযোগিতায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন এবং ইউএনডিপি এর সহায়তায় পরিচালিত অ্যাস্পায়ার টু ইনোভেট (এটুআই) প্রোগ্রাম আয়োজন করেছে। এটুআই-এর প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) ড. মো. আব্দুল মান্নান এর সভাপতিত্বে ও এটুআই-এর হেড অব ফিউচার অব ওয়ার্ক ল্যাব আসাদ-উজ্-জামান ‘চতুর্থ শিল্প-বিপ্লব উপযোগী প্রযুক্তি নির্ভর ৫০টি পাইলট প্রজেক্ট’ এর ধারণা বিষয়ক একটি উপস্থাপনা প্রদান করেন। 

অনলাইন কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন সিঙ্গাপুর পলিটেকনিক ইন্টারন্যাশনাল-এর জেনারেল ম্যানেজার এন্ড্রুও টান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ঘোষণা দেওয়ার পর থেকেই আমরা চতুর্থ শিল্প-বিপ্লবের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি। সব উদ্যোগগুলোর সাথে চতুর্থ শিল্প-বিপ্লবের উপাদানসমূহ সমন্বয় করে বিভিন্ন সেক্টরের দক্ষতা উন্নয়নে আমরা বর্তমানে কাজ শুরু করেছি। ভবিষ্যতে সকল সেক্টরে প্রযুক্তি-নির্ভর দক্ষ জনশক্তি বৃদ্ধি করা এখন আমাদের অন্যতম লক্ষ্য।

সিঙ্গাপুর পলিটেকনিক ইন্টারন্যাশনাল-এর জেনারেল ম্যানেজার এন্ড্রুও টান বলেন, গত চার দশক ধরে বাংলাদেশ এবং সিংগাপুরের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিরাজ করছে। যা ১৯৭২ সালে কুটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে শুরু হয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ে এ সম্পর্ক সরকারি বেসরকারি পর্যায়ে আরো গতিশীল হয়েছে, এ প্রোগ্রাম তার অন্যতম উদাহরণ আমরা এ যাত্রা অব্যাহত রাখতে চাই।

সভাপতির বক্তব্যে এটুআই-এর প্রকল্প পরিচালক ড. মো. আব্দুল মান্নান, পিএএ বলেন, চতুর্থ শিল্প-বিপ্লবের ফলে বাংলাদেশে অনেক সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং সে সুযোগগুলো কাজে লাগাতে হবে। এজন্য আমাদের অকুপেশন-ভিত্তিক রেডিনেস এ্যানালাইসিস করা প্রয়োজন এবং কম্পিটেন্সি স্ট্যান্ডার্ট তৈরি করতে হবে।

আমরা সিঙ্গাপুর ভিত্তিক টেমাসেক ফাউন্ডেশন ও সিঙ্গাপুর পলিটেকনিক এর সহযোগিতায় ৫০টি প্রকল্প হাতে নিয়েছি। এর মধ্যে ১৬টি প্রকল্প সরকারি দপ্তর (মন্ত্রণালয়/অধিদপ্তর), ২৭টি প্রকল্প শিল্প প্রতিষ্ঠান/এসোসিয়েশন এবং ২টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ৭টি প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে। এ প্রজেক্টসমূহ আমরা বাস্তবায়ন করতে চাই এবং দেখাতে চাই চতুর্থ শিল্প-বিপ্লব মোকাবেলায় আমরা দক্ষতা অর্জন করেছি এবং আমাদের দেখে অন্যরা অনুপ্রাণিত হবেন, উৎসাহিত হবেন।

উল্লেখ্য, তারুণ্যের শক্তি’কে যথাযথ ভাবে কাজে লাগানোর লক্ষ্যে ‘জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন নীতিমালা ২০১১’ ও ‘জাতীয় যুব নীতিমালা ২০১৭’ এর আলোকে এটুআই থেকে নানাবিধ দক্ষতা উন্নয়নমূলক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। বিভিন্ন সেক্টরে চতুর্থ শিল্প-বিপ্লব উপযোগী দক্ষতা উন্নয়ন এর মধ্যে অন্যতম।

বাংলাদেশের শ্রমশক্তির বাজারে চতুর্থ শিল্প-বিপ্লবের প্রভাব নিরূপণের লক্ষ্যে এটুআই এর উদ্যোগে বাংলাদেশে পাঁচটি সেক্টরে (ফার্নিচার সেক্টর, এগ্রো ফুড সেক্টর, বস্ত্র ও তৈরি পোশাক সেক্টর, ট্যুরিজম ও হসপিটালিটি সেক্টর এবং লেদার ও ফুটওয়্যার সেক্টর) একটি গবেষণা পরিচালিত হয়।

পরিচালিত গবেষণায় দেখা যায় যে, ২০৪১ সালের মধ্যে ফার্নিচার সেক্টরে ৫৫% (১৪,০০,০০০ লক্ষ), এগ্রো ফুড সেক্টরে ৪০% (১০,০০,০০০ লক্ষ), বস্ত্র ও তৈরি পোশাক সেক্টরে ৬০% (২৭,০০,০০০ লক্ষ), ট্যুরিজম ও হসপিটালিটি সেক্টরে ২০% (৬,০০,০০০ লক্ষ) এবং লেদার ও ফুটওয়্যার সেক্টরে ৩৫% (৪,০০,০০০ লক্ষ) লোক চাকুরি হারাবে এবং একই সঙ্গে নতুন নতুন পেশায় চাকরির সুযোগ তৈরি হবে। এ গবেষণার আলোকে বাংলাদেশ সরকারের প্রযুক্তিনির্ভর দক্ষ জনবল উন্নয়নের ক্ষেত্রে নতুন নতুন ট্রেড/পেশায় এ ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে।

এ লক্ষ্যে এটুআই সিঙ্গাপুর ভিত্তিক টেমাসেক ফাউন্ডেশন ও সিঙ্গাপুর পলিটেকনিক এর কারিগরি সহযোগিতায় অটোমেশনের ফলে সৃষ্ট কর্মসংস্থানের চাহিদা অনুযায়ী এগ্রো ফুড সেক্টর, বস্ত্র ও তৈরি পোশাক সেক্টর, ট্যুরিজম ও হসপিটালিটি সেক্টর ও লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং সেক্টরে বাংলাদেশে নতুন নতুন পেশায় কারিকুলাম ও মাস্টার ট্রেইনার তৈরি, চতুর্থ শিল্প-বিপ্লব ভিত্তিক দক্ষতা উন্নয়ন পলিসি ফ্রেমওয়ার্ক ও স্ট্র্যাটেজি তৈরিসহ দক্ষতা উন্নয়নের জন্য ট্রেডভিত্তিক ৫০টি প্রকল্প গ্রহণ করেছে।

পাইলট প্রকল্প বাস্তবায়নের সর্বমোট ৭টি ধাপের মধ্যে ১ম ধাপ (দক্ষতা উন্নয়ন নীতি-নির্ধারকগণের জন্য সিঙ্গাপুরে কর্মশালা ও ২য় ধাপ (দক্ষতা উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নকারীগণের জন্য বাংলাদেশে কর্মশালা) সম্পন্ন হয়েছে। বর্তমানে ৩য় ধাপে (দক্ষতা উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নকারীগণের জন্য অকুপেশন ভিত্তিক রেডিনেস এনালাইসিস ও কম্পিট্যান্সি স্ট্যান্ডার্ড তৈরি) ৫ দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ/কর্মশালা অনলাইনে আয়োজন করা হয়েছে।

টেক্সটাইল অ্যান্ড ফ্যাশন ইন্ড্রাস্ট্রি ট্রেনিং সেন্টার-এর প্রধান নির্বাহি ডোরেন টান, বাংলাদেশ টেকনিক্যাল এডুকেশন বোর্ড (বিটিইবি)-এর উপ-পরিচালক (কোর্স অ্যাক্রিডেশন) এস এম শাহজাহান এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প বাস্তবায়নকারী কর্মকর্তাগণ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর