• রোববার   ০৯ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭

  • || ১৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

কাশি কখন দুশ্চিন্তার কারণ?

দৈনিক গাইবান্ধা

প্রকাশিত: ১ আগস্ট ২০২০  

কাশি এমন একটি সাধারণ স্বাস্থ্যগত সমস্যা, যে সমস্যায় বেশিরভাগ লোক চিকিৎসকের সাথে দেখা করার প্রয়োজন অনুভব করে না। তবে যদি এটি দীর্ঘকাল স্থায়ী হয় এবং সেইসাথে নিচের লক্ষণগুলোর যেকোনো একটিও মিলে যায়, তবে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন-

* ঘন, সবুজ-হলুদ কফযুক্ত কাশি

* জ্বর

* নিঃশ্বাসের দুর্বলতা

* মাথা ঘোরা

* গোড়ালি ফোলা বা ওজন হ্রাস

কী করা উচিত?
এই ঋতুতে গলা ব্যথা এবং কাশি বেশ সাধারণ। যখন আমরা অসুস্থ বা ফুসফুসের জ্বালা অনুভব করি, তখন আমাদের দেহ কাশি দ্বারা প্রতিক্রিয়া জানায়। যা বায়ু উত্তরণ থেকে শ্লেষ্মা ও অ্যালার্জেন বের করে দিতে সাহায্য করে। কাশি ঠান্ডার একটি সাধারণ লক্ষণ এবং কিছুদিন পরে এটি নিজে থেকেই ভালো হয়ে যায়। তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে, যখন কাশিও করোনভাইরাসের একটি গুরুত্বপূর্ণ লক্ষণ, তখন আমাদের স্বাস্থ্যের অবস্থা সম্পর্কে আরও সতর্ক হওয়া জরুরি। এমনটাই প্রকাশ করেছে টাইমস অব ইন্ডিয়া-

সাধারণ কাশি কতদিন স্থায়ী হয়?
দীর্ঘস্থায়ী কাশি করোনাভাইরাসসহ বিভিন্ন অসুখের লক্ষণ হতে পারে। সাধারণভাবে, কাশি এক বা দুই সপ্তাহ পরে নিজে নিজেই সেরে যায়। কাশি যদি বয়স্কদের ক্ষেত্রে আট সপ্তাহের বেশি বা শিশুদের ক্ষেত্রে চার সপ্তাহর বেশি থাকে, তবে এটি দীর্ঘস্থায়ী হিসাবে বিবেচনা করা হয়। একটি সমীক্ষা অনুসারে, অসুস্থতার কারণে গড়ে কাশি প্রায় ১৮ দিন ধরে থাকে।

দীর্ঘস্থায়ী কাশি হওয়ার কারণ
দীর্ঘস্থায়ী কাশি বিভিন্ন স্বাস্থ্য সম্পর্কিত জটিলতার কারণে হতে পারে। কাশি স্থায়ী হওয়ার কয়েকটি সাধারণ কারণ:

শ্বাস প্রশ্বাসের সংক্রমণ: কিছু অ্যালার্জেনের কারণে বায়ু উত্তরণে জ্বালা কাশির কারণ হতে পারে।

হাইপারেক্টিভ গ্যাগ রিফ্লেক্স এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্স: এই উভয় অবস্থার কারণে আপনার গলায় দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা হতে পারে এবং সময়ে সময়ে অবস্থা আরও খারাপ হতে পারে।

ওষুধ: আপনি প্রতিদিন যেসব ওষুধ খাচ্ছেন সে সম্পর্কে সতর্ক থাকুন। রক্তচাপের ওষুধ খেলে অনেক সময় কাশি বাড়ে।

ধূমপান: ধূমপায়ীরা সাধারণত কাশি সম্পর্কে অভিযোগ করেন। এটি আসলে এমন একটি উপায় যার মাধ্যমে আমাদের দেহ নিকোটিন ব্যবহারের মাধ্যমে শ্বাসনালী এবং ফুসফুসে প্রবেশ করে এমন রাসায়নিকগুলো সরিয়ে দেয়।

কিছু ঘরোয়া প্রতিকার
কাশির ক্ষেত্রে বেশিরভাগ লোক ওষুধের ওষুধের উপর নির্ভর করে। তবে কাশির ওষুধ অন্তর্নিহিত রোগের জন্য অকার্যকর। সুতরাং, আপনার ডোজ সম্পর্কে সতর্কতা অবলম্বন করুন। কাশি সারানোর জন্য এই ঘরোয়া প্রতিকারগুলো ব্যবহার করতে পারেন:

লবণ-পানির গার্গল: লবণ-পানিতে গার্গল করলে তা জীবাণু মারতে এবং গলা ব্যথা প্রশমিত করতে সহায়তা করে।

মধু: মধু শুকনো কাশি দূর করতে কার্যকরী। এই উপাদানে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা জীবাণু মারতে সহায়তা করে।

ভাপ নিন: কাশি হলে নিয়মিত গরম পানির ভাপ নিন। এটি আপনাকে গলা ব্যথা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করবে।

দৈনিক গাইবান্ধা
দৈনিক গাইবান্ধা
স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর